1. admin@ptvnews24.com : admin :
শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১২:৩০ পূর্বাহ্ন
প্রধান খবর
বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে স্বাধীন জাতি হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারতাম না: শিক্ষা উপমন্ত্রী  সিলেট শিববাড়িতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২ জন নিহত  ছাত্রলীগ নেতার ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল পাকিস্তানি এজেন্ট জিয়া, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ছিলেন না’ উওর ফেঞ্চুগঞ্জ ইউপিতে ভাতার বই বিতরণ করেন এমপি আলহাজ্ব মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী প্রতিবন্ধীর ৮ হাজার টাকা কেটে নিয়ে নিয়েছিল ইউপি সদস্য জানা গেল যে কারণে বি`য়ে করেননি সাবেক মে`জর সি`নহা হাসপাতালেই মৃত করোনা রোগীর দেহ খুবলে খেল কুকুর  মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে দীঘিরপার ইউপিতে ২৬০ জনের মাঝে ভাতার বই বিতরণ করোনায় আক্রান্ত পরিবেশমন্ত্রী,নেওয়া হচ্ছে সিএমএইচে দেশের সব সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত আজ থেকে বন্ধ করোনা ভাইরাসের সরাসরি ব্রিফিং সিলেটে এখন জঙ্গি আতঙ্কিত শহর !  সিলেটে জঙ্গিদের ভাড়া বাসা ঘিরে রেখেছে পুলিশ শাহজালাল মাজারে হামলার পরিকল্পনা: নব্য জেএমবি’র ৫ সদস্য আটক গাজীপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাসপাতালে, লাখ টাকা জরিমানা শুভ জন্মাষ্টমী  শুভ জন্মাষ্টমী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী  সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের জাতীয় শোক দিবসসহ পুরো আগস্টের কর্মসূচী ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি : সিলেট থেকে যুবক আটক আয়তনে দ্বিগুণ হচ্ছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন, গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ  গোয়াইনঘাটে পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার ছাতকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, চেয়ারম্যান গ্রেফতার লন্ডন থেকে সরাসরি বিমান এসে ওসমানীতে নামলো,যাত্রীদের মুখে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রসংশা  মন্দিরাঙ্গনে সীমাবদ্ধ থাকবে জন্মাষ্টমী পালন  এএসআইকে প্রকাশ্যে মারধর করলেন বামনা থানার ওসি, ভিডিও ভাইরাল মোটরসাইকেলে বোমাসদৃশ বস্তু পাওয়া সেই সার্জেন্ট বরখাস্ত  করোনায় নগদ অর্থ সহায়তা ও ঋণ দিচ্ছে ফেসবুক ♥♥ভালোবাসা-পর্ব-২১♥♥ ‘জয়তু বঙ্গমাতা’ স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমান দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ১৭ জন নিহত বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মবার্ষিকী আজ স্বামীকে বাঁচাতে স্ত্রীর লিভার দান:সিলেটের সেই দম্পতিকে নিয়ে ‘বরণ উৎসব’  জেলে যে ভাবে আছেন ওসি প্রদীপ! সিলেটে গুলিবর্ষণ আহত ০১  বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে এনে রায় কার্যকর করতে সরকার সচেষ্ট: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়েজ আহমদ বাবরের মৃত্যুতে জেলা আ’লীগের শোক করোনায় আক্রান্ত এস এম জাকির হোসানের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয় আগামী বছরের মার্চের তৃতীয় সপ্তাহের ইউপি নির্বাচন শুরু হবে জেকেজিকে সহায়তা করেও আসামি নন সাবেক স্বাস্থ্য ডিজি! ♥♥ভালোবাসা-পর্ব ১৯-২০♥♥ বিয়ানীবাজার থেকে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক খুলছে কক্সবাজারের সব পর্যটন কেন্দ্র  ভাঙ্গনের কবলে বিলীন গোলাপগঞ্জের উত্তর আলমপুর গ্রামের রাস্তা চৌহাট্টায় বোমা সদৃশ্যবস্তু রাখা মোটরসাইকেলটি ট্রাফিক সার্জেন্টের  কক্সবাজার’ দেখতে গিয়ে লাশ হলেন ১৭ জন  জুনিয়র কামরানকে নিয়ে বাবার কবরের পাশে শিপলু  সিলেটে বন্দুকযুদ্ধে মাদক মামলার আসামি নিহত সিনহার মাকে প্রধানমন্ত্রীর ফোন, বিচারের আশ্বাস ঢাকায় টিকটকার অপু গ্রেফতার (ভিডিও)  সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহার বুকে–পিঠে ছিল জখমের দাগ পূর্ব দিঘীরপার ইউপিতে ১৮০ পরিবারকে গরুর মাংস বিতরন শোকাবহ আগস্ট মেয়াদ বাড়ল ইতালি প্রবেশের নিষেধাজ্ঞার ♥♥ভালোবাসা-পর্ব-১৮♥♥ মুরগি বিল্লাল’ থেকে কোটিপতি, অতঃপর ধরা শ্রমিকলীগ নেতা ভিডিওবার্তায় দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী ♥♥ভালোবাসা-পর্ব-১৭♥♥ মাস্ক পরতে বলায় স্বাস্থ্যকর্মীকে পেটালেন যুবলীগ নেতা সাহেদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দাখিল বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে উত্তর বাদেপাশা ইউনিয়নের আওতাধীন উত্তর আলম পুর, কোনা গাও,কুলিয়া গ্রামের একমাত্র যোগাযোগের রাস্তা গোপন গুনাহের অভ্যাস মানুষকে ধ্বংস করে দেয়:—- রাস্তা সংস্করণ চাই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিজনের ৮ টাকা বরাদ্দ, যথেষ্ট বললেন প্রতিমন্ত্রী আমজনতার গণদাবী রাস্তা সংস্করণ চাই রাস্তা সংস্করণ করা হোক। ♥♥ভালোবাসা-পর্ব-১৬♥♥ কোরবানির গোশত ও চামড়া বিলি বণ্টনের নিয়ম ৫০০ উইকেটের মাইলফলক ব্রডের উত্তর আলমপুর রাস্তা সংস্করণ গণ ঐক্য পরিষদ গোলাপ গনজ্, সিলেট। যেদিন পরানো হবে কাবা শরিফের স্বর্ণখচিত নতুন গিলাফ করোনায় দেশবাসীকে সুখর দিলেন নাসিমা সুলতানা সিটি পয়েন্টকে ‘কামরান চত্বর’ নামকরণ করলেন আ. লীগ নেতাকর্মীরা সাখাওয়াত হোসেন শফিকের পিতার মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক  প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে নৌবাহিনী প্রধানকে পরানো হলো র‌্যাংক ব্যাজ  মেডিকেলের প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য সিআইডি’র কাছে বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৬০ লাখ ছাড়িয়েছে রিমান্ড শেষে আদালতে শাহেদ বাংলাদেশকে ১০টি রেল ইঞ্জিন ‘ঈদ উপহার’ দিচ্ছে ভারত ধেয়ে আসছে পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়! ঘুষ না দেয়ায় কিশোরের সব ডিম ভেঙে দিল পুলিশ(ভিডিও)  আরো ৩ স্যাটেলাইটের মালিক হচ্ছে বাংলাদেশ  রান্নার পাত্রে বসিয়ে নদী পাড়ি দিয়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হাসপাতালে নিলেন স্বামী‍! সিলেটে ঘরের ভিতর গোপনাঙ্গ কাটা স্বামীর লাশ, পালিয়েছেন স্ত্রী লকডাউনে স্বামীর সঙ্গ না পাওয়ায় আত্মহত্যা  ♥ভালোবাসা-পর্ব-১৫♥ সিলেটে ৯০ লাখ টাকার ইয়াবাসহ আটক ১  অনলাইনে প্রতারণা করে ৪ মাসে আয় ২ কোটি, কিনেছেন দামি বাড়ি-গাড়ি!  ৬শ’ উদ্বাস্তুকে ফ্ল্যাট দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী  ভালোবাসা পর্ব-১৪ বিকাশের অ্যাকাউন্ট থাকলেই মিলবে ১০০০০ টাকা ব্যাংক ঋণ ‘রুম’ চালু করল ফেসবুক হাসপাতালে রোগী নেই, অথচ স্বাস্থ্যখাতে খরচ শত শত কোটি টাকা  ডিম আগে নাকি মুরগি’ সমাধান দিলেন গবেষকরা  মা-বাবার হত্যাকারীদের খুন করে ভাইরাল এই তরুণী ♥ভালোবাসা পর্ব১২-১৩♥ ২০ বছর ধরে পানিতেই দাঁড়িয়ে আছেন নারী!  করোনার টিকা বাংলাদেশ কিভাবে বিনা মূল্যে পাবে? পদত্যাগ করলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি আবুল কালাম আজাদ দেশে বন্যায় ২৫ মৃত্যু, ২৫ জুলাই পর্যন্ত পানি বাড়বে সুনামগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে, নিখোঁজ ২১  বন্যার্তদের যেন ত্রাণের ঘাটতি না হয়, নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর নিলামে উঠছে সালমান শাহের টিশার্ট ও মাথার ব্যান্ড সৌদি আরবে ঈদুল আজহা ৩১ জুলাই করোনারোগীর কফিনের ভেতর গাঁজার ‘পোটলা’  চাঁদ দেখা যায়নি, মধ্যপ্রাচ্যে ঈদ ৩১ জুলাই  বয়কটের বিষয়ে কিছুই জানেন না জায়েদ খান  ডা. সাবরিনার দুর্নীতির অনুসন্ধানে চার প্রতিষ্ঠানে দুদকের চিঠি জেকেজির সাবরিনা কারাগারে দেশে নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৯২৮, মৃত্যু ৫০  করোনা আক্রান্ত ছিলেন, তবুও রোগী দেখতেন সিলেটের ডা. শাহ আলম  কলেজে ভর্তি শুরুর সিদ্ধান্ত  সিলেটে করোনার ভূয়া সার্টিফিকেট দেয়ার অভিযোগে ডা. শাহ আলম গ্রেফতার বাংলাদেশের জনসংখ্যা অর্ধেক হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা! ♥ভালোবাসাপর্ব১১♥ সিলেটে এমসি কলেজ মাঠে পশুর হাট না বসানোর দাবিতে বিক্ষোভ  শাহেদ-সাবরিনার নতুন তথ্য জানাল ডিবি  এবার পশুর হাট চলবে ৫ দিন ♥ভালোবাসা -পর্ব- ৯ ও ১০♥ পরিচয় দিয়ে প্রতারণা: সিলেটের শীর্ষ সন্ত্রাসী আকরাম গ্রেপ্তার কাউয়ায় কাউয়ার মাংস খায় না প্রশাসনকে বললেন পল্লব সম্রাট-পাপিয়া-খালেদ-জিকে শামীম বিচার কতদূর শাহেদ-মাসুদ ১০ দিনের রিমান্ডে মৌলভীবাজারে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন, একদিনে ৬৫ মামলা ছাত্রকে ধর্ষণ করে ভিডিও করলেন শিক্ষিকা!  ৯ দিন গণপরিবহন বন্ধ ঈদের আগে-পরে সাহেদকে আটকিয়ে দেয় কয়েকটি কুকুর শাহজালাল (রঃ) উচ্চ বিদ্যালয় সভাপতি-এড.আফছর আহমদ ভালোবাসা পর্ব- ৮ এফডিসিতে বয়কট জায়েদ খান  স্বামী-স্ত্রীর ভয়াবহ কাণ্ডে স্থবির মুম্বাইয়ের রাস্তা!(ভিডিও) সিলেটে বন্যা কবলিত মানুষের পাশে কামরান পুত্র আরমান আপনাদের ঘরে কি মা-বোন নেই’ বলেই কাঁদলেন ডা. সাবরিনা (ভিডিও) যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল করোনায় মারা গেছেন।  আমার হাজব্যান্ড আমাকে এটা বলতে বলেছে: ডা. সাবরিনা এই প্রতারক দম্পতির উত্থান কাহিনী রূপকথার গল্পের মত  স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, বাড়িতে ঢুকে মেম্বারকে খুন করলেন কৃষক করোনা রিপোর্ট কেলেঙ্কারি: ডা. সাবরিনা গ্রেফতার দেশ-বিদেশে আলোচিত প্রতারক সাহেদের দ্বিতীয় বিয়ে সিলেটে! করোনার টিকা কবে আসছে, সেই সুখবর দিলেন গবেষকরা ৮৬টি প্রতিষ্ঠানকে ৩ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা ৭২ ঘন্টার মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের অপসারণের দাবি করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ মৃত্যু মা ও শিশু স্বাস্থ্য কার্যক্রমে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ পুরস্কার পেলেন আলী হোসেন কাজল সিলেটের আলোচিত পরিবহন নেতা ফলিক বহিষ্কার মাস্ক ছাড়া সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট, সব সাংবাদিক কোয়ারেন্টাইনে  নিউইয়র্কে এই প্রথম মুসলিম পুলিশ কমান্ডিং অফিসার নিয়োগ ইতালিফেরত ১৪৭ বাংলাদেশি আশকোনা হজক্যাম্পে কোয়ারেন্টাইনে দেশে করোনায় আরও ৩৭ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৯৪৯ ♥ভালোবাসা- পর্ব -৭♥ ঈদের পর খুলবে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঈদ পযর্ন্ত সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।  করোনায় আরো ৩৭ জনের মৃত্যু মা ও শিশু স্বাস্থ্য কার্যক্রমে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ হলো দিঘীরপাড় পূর্ব ইউপি যে ওষুধে ‘করোনায় সুস্থের হার বাড়ছে’ বাংলাদেশে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের কালো তালিকায় ১৪ প্রতিষ্ঠান কোনালের ‘আগুন লাগাইলো’ কোটির ঘর ছাড়াল করোনায় সরাসরি নিয়োজিত ডাক্তার-নার্স পাবেন বিশেষ প্রণোদনা করোনা ভূয়া নেগেটিভ সার্টিফিকেটধারী বিমান যাত্রী : বন্ধ হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ঈদে এক কোটি পরিবার পাবে ১০ কেজি করে চাল  ৬শ’ করোনা আক্রান্ত বাংলাদেশি প্রবাসী ইতালিতে প্রবেশ করেছেন’ করোনার টিকা বিশ্বের সবাইকে বিনামূল্যে দিতে হবে ১৫ বছর ধরে ধর্ষণের শিকার ৬ : ছাত্রলীগ নেতাসহ আটক ৭ বিসিএস ক্যাডারের গোপন বিয়ে, স্ত্রী হতে চায় আরও ৩ ছাত্রী! বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপকের স্ত্রীর সঙ্গে পিএসের অ’নৈতিক সম্পর্ক নিয়ে তোলপাড়  ভালোবাসা-পর্ব-৬ মেস ভাড়া মওকুফের সুবিধা থেকে বঞ্চিত দেড় হাজার শিক্ষার্থী দুবাইয়ে আটকে পড়া ১৫৩ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনলো ইউএস-বাংলা একদিনে ৩৪৮৯ জনের করোনা শনাক্ত এমপি কন্যা শিক্ষিকার একি কান্ড! মানবপাচারের বিরুদ্ধে কঠোর সরকার: প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসায় প্রতারণা সিলগালা করা হলো রিজেন্ট হাসপাতাল করণ জোহর স্বজনপ্রীতির উদাহরণ॥ কঙ্গনা করোনা বিপর্যয়ের মধ্যে ভারসাম্যের কৌশল নিয়েছে সরকার॥ প্রধানমন্ত্রী বিছানায় মায়ের সঙ্গে ফুপাকে দেখে ফেলায় খুন!  সাধারণ মানুষকে হয়রানি করা সেই ওসি পুলিশ লাইনে সংযুক্ত বাংলাদেশের সঙ্গে ইতালির বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেশে একদিনে আরও ৫৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩০২৭  কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই সিলেটে ১০ বছরের নাতনিকে যে ভাবে ধর্ষণ করলেন নানা শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ  ♥ভালোবাসা -পর্ব (৫)♥ এতিম শিশু ছাত্রকে পিটিয়ে আহত করলো মসজিদের ইমাম  প্রাথমিকে বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি আসছে প্রবাসীদের জন্য সুখবর দিলো অগ্রণী ব্যাংক ♥ভালোবাসা পর্ব-৪♥ চালু হল বিশ্বের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতাল  সুগন্ধায় ধরা পড়ছে বড় ইলিশ, দাম চড়া  করোনার বিদায় নেই, আক্রান্ত হবে ৬০ কোটি ও মৃত্যু ৩৭ লাখ!  করোনা দুর্যোগেও দেশে কেউ না খেয়ে থাকেনি: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পোশাক রফতানি কমেছে ৬০০ কোটি ডলার অসহায় মায়েদের জন্য বর্ষার অন্যরকম উপলব্ধি চলতি মাসেই শুটিংয়ে ফিরবেন সাইমন ভ্যাট কাঠামোর সুরাহার দাবিতে ইন্টারনেট বন্ধের কর্মসূচির কথা ভাবছে আইএসপিএবি বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নে গোড়ায় গলদ বিশ্বে ফের রেকর্ড: এবার ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত দুই লাখ ৯ হাজার রোগী করোনায় মৃত্যু শীর্ষে ঢাকা, সবচেয়ে কম ময়মনসিংহে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা রোগী ভর্তি শুরু লকডাউনের সুযোগে জঙ্গিরা অনলাইনে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছে’ ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল: ৪ প্রকৌশলী বরখাস্ত, ৩৬ জনকে শোকজ ভালোবাসা-পর্ব-৩ ১ আসামি ধরতে গিয়ে প্রাণ গেল পুলিশের ৮ সদস্যের নমুনা পরীক্ষায় অনিয়মের প্রতিবাদ করায় রোগী ও সাংবাদিকের ওপর হামলা  চীনকে ‘মুছে ফেলার’ প্রচ্ছন্ন হুমকি মোদির  ৭ জুলাই থেকে ঢাবিতে পুরোদমে অনলাইন ক্লাস শুরু বিএসএফ সদস্যকে ধরেও গুলি করেনি বিজিবি  ১৩ ঘণ্টা পর উ’দ্ধার হওয়া সুমন বেপারীকে নিয়ে বেড়িয়ে এলো চা”ঞ্চ”ল্য’কর তথ্য! প্রবীণ সাংবাদিক ফারুক কাজী আর নেই  যে কারণে ভারতীয় ট্রাক আটকে দিল বাংলাদেশ  করোনার ২৪ ঘণ্টার বুলেটিনে রোগীর সংখ্যায় গোঁজামিল!  খাদিমপাড়া হাসপাতালে দেয়া হচ্ছে এম্বুলেন্স ইউনিয়ন বাসীরপ্রতি- চেয়ারম্যানের কৃতজ্ঞতা  লক্ষ্মীপুরে ৩০ লাখ টাকার সরকারি চাল-গম উদ্ধার  অস্ত্রোপচার ছাড়াই স্বাভাবিকভাবে তিন মাসে ৮৩টি সফল ডেলিভারি ইউপি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরকীয়ায় ধরা খেয়ে স্বামীকে হত্যা করলো স্ত্রী সপরিবারের করোনামুক্ত শহীদ আফ্রিদি করোনায় বিশ্ব অর্থনীতির ক্ষতি কত?  পদত্যাগ করেছেন নেদারল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রী, আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে নিয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন প্রধানমন্ত্রী ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষায় প্রশাসন ক্যাডারে কানাইঘাটের দুই বোন  একাধিক হাসপাতালে ঘুরেও চিকিৎসা মিলছে না শিশুদের উইঘুর মুসলিমদের ইলেক্ট্রিক শক দিয়ে ভ্রুণ হত্যা করছে চীন সরকার  পাপুল কাণ্ডে কুয়েতি মেজর জেনারেল বরখাস্ত  স্বাস্থ্যবিধি মেনে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত খোলা থাকবে শপিংমল  করোনা সংকটে কেউ না খেয়ে মারা যায়নি ,মাসুক উদ্দিন আহমদ আ’লীগ সিলেট মহানগর সভাপতি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় সদর উপজেলার বন্যাদুর্গতরা পাচ্ছে ১০০ মেট্রিক টন চাল ও ১০ লক্ষ টাকা বিদ্যুৎ বিল দেয়ার সময় বাড়ল  খাদিমপাড়া ইউনিয়নে ৪ কোটি ১৬ লক্ষ টাকার বাজেট ঘোষণা ১৩ ঘণ্টা পর একজনকে জীবিত উদ্ধার! নারীকে দিনের বেলায় ধর্ষণ ও নির্মমভাবে খুন ♥♦♥ভালোবাসা-পর্ব ২ ছুঁয়েও দেখলেন না কোন ডাক্তার, বাবার কোলেই শিশুর করুণ মৃত্যু করোনায় না ফেরার দেশে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর স্ত্রী শাহ খুররম ডিগ্রি কলেজের সভাপতি পদে নাদেল, সদস্য পদে নিজাম  করোনায় মানসিক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে সব বয়সী মানুষ ১০ কোটি টাকার মামলা ২ লাখে রফদফা করতে চেয়েছিলেন শাকিব সিলেটে বন্যা পরিস্থিতি খুব ভয়াবহ,খাবার ও বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট বাংলাদেশিদের জন্য বন্ধই থাকছে শেনজেন ভিসা  সারাদেশের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছাতক গায়ের জোরে বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম বাড়াচ্ছে সরকার: রিজভী  পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালো নার্সেস এসোসিয়েশন খাদিমপাড়ায় করোনা আইসোলেশন সেন্টার উদ্বোধন করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী  দেড় কোটির বেশি পরিবারকে সরকারের ত্রাণ সহায়তা জেনে নিন কোন দেশ কবে সম্পূর্ণ করোনা মুক্ত হবে কোরবানির পশুর হাট থেকে করোনার বিস্ফোরণ হতে পারে’ শরীর ঘেঁষে হাঁচি দেয়ায় পিস্তল নিয়ে তেড়ে এলেন এমপির দেহরক্ষী আমার জন্য তাঁর এই ভালোবাসার প্রতিদানটুকু আমি তাঁকে কেমন করে দেব জাফর ইকবাল কোটি ছুঁতে চলল বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত ৩৮৬৮  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঘুষ লেনদেনকালে অডিটরসহ চারজন আটক সাংবাদিকরা জেগে থাকলে সমাজে অন্যায় কম হয়:হাইকোর্ট আত্মহত্যা করেছেন জনপ্রিয় তারকা সিয়া কক্কর ঢাকাসহ দেশের ৯ জেলায় নতুন ডিসি সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকার পাহাড়, ফেরত আনার তাগিদ সাবেক অর্থমন্ত্রীকে নিয়ে অপপ্রচারকারীর বিরুদ্ধে এসএম নুনু মিয়ার আল্টিমেটাম রিফাত হত্যার এক বছর : ন্যায় বিচারের প্রত্যাশা পরিবারের চট্টগ্রামে চিকিৎসক সংক্রমণ ও মৃত্যু আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে হাজার হাজার মানুষ বেকার, ঢাকা ছাড়ছেন অনেকেই আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও সাহেদ মুহিত সম্পর্কে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে পরিবারের প্রতিবাদ  পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা সিলেট সরকারি কলেজে কামরানের নামে ভবন নামকরনের দাবী শায়খুল হাদিস আব্দুস শহীদ গলমুকাপনী আর নেই রাজধানীর চকবাজারে একটি পলিথিন কারখানায় আগুন লেগেছে শনিবার থেকে খাদিমপাড়া হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা করোনাকালে রাজনীতি, উল্টো পথে বিএনপি এবার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে  তোমাকেই_মনে-পড়েপর্ব_৩১(সমাপনি) সিলেটে নিহত ২ আটক ৫ করোনার বিস্তার রোধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিন দাবিতে সিলেটবাসীর স্মারকলিপি ভারত-চীন কী সিদ্ধান্ত নিল?  নমুনা দেওয়ার ১৭ দিনেও আসেনি রিপোর্ট, ‘বাধ্য হয়ে’ কর্মস্থলে ইউএনও  শামসুদ্দিনে সাড়ে ২৮ লাখ টাকার হ্যাপা ফিল্টার দিলেন বিএনপি নেত শফি  সিলেটের নাইওরপুলেও ২৫ কোটি টাকার জায়গা আছে এমপি পাপুলের  বাসাবাড়ির গ্যাস সংযোগ চালু : গ্যাস মিলবে ঘরে ঘরে আমাদের না খেয়ে মৃত্যু হবে,সবার মুখে ভাত দিন, হোটেল শ্রমিকদের দাবি বিশ্ব আজ করোনা ভাইরাসের তান্ডবে লন্ডভন্ড সিলেটে নতুন করে আরোও ৭৯ জনের করোনা শনাক্ত  আজ মেসির জন্মদিন তোমাকেই_মনে-পড়ে পর্ব_৩০ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় সিলেট ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে ২ কোটি টাকা বরাদ্দ  এনজিও’র ঋণ ফেরতের সময় বাড়লো আরো ৩ মাস ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তুলব: প্রধানমন্ত্রী  করোনা জয়ী বোন লিভার দিয়ে বাঁচালো ছোট বোনের প্রাণ! করোনার ভুয়া পরীক্ষার ফাঁদ, আটক ৬  আ’লীগ মানুষের অন্তরে জায়গা করে নিয়েছে: কাদের স্বাস্থ্যখাতে নয়-ছয় বন্ধে ‘পদক্ষেপ নেই’ তোমাকেই_মনে-পড়েপর্ব_২৯ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ প্রতিষ্টা বার্ষিকী : বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সিলেট মহানগর আ.লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন  আরও ৫ জেলা সাধারণ ছুটি ঘোষণা  আমরা আজ আত্মমর্যাদাশীল দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি প্রধানমন্ত্রী  গোল পেলেন রোনালদো, সহজ জয় জুভেন্টাসের বিসিএসের প্রস্তুতিতে শ্বশুরবাড়ির বাধা, প্রাক্তন ঢাবি ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার শামসুদ্দিনে সিট নেই, রোগী যাবে কোথায়?  স্বাস্থ্য বিভাগকে ‘শুধু আজগুবি নয়, মহা আজগুবি বিভাগ’ বললেন এমপি একরাম  পাকিস্তানের গুলিতে ভারতীয় সেনা নিহত নতুন করে শ্রমিক নেয়া স্থগিত করল মালয়েশিয়া হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন মাশরাফী আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী কাল ঢাকার বাইরে রেডজোন দিয়ে সুফল মিলবে না, জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা  করোনা দুর্যোগের মধ্যে দুর্ভোগ হাসপাতালের দুয়ার থেকেই ফিরতে হচ্ছে! ১২ ঘণ্টার ব্যবধানে দেশে দুবার ভূমিকম্প রেড জোন ১০ জেলায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা প্রতি নমুনায় ৫’ হাজার টাকা দাবি শামসুদ্দিন হাসপাতালের : অভিযোগ নর্থ-ইস্টের রেড জোন ১০ জেলায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা মৌলভীবাজারে ৯৯৬ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন এমপিকে অভিনন্দন জানালেন ছফু সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক চার লেন হবে বিমানবন্দরের রানওয়ের আদলে সৌদি থেকে ৩৮৬ বাংলাদেশি ফিরছে আজ  মৌলভীবাজারসহ সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকার ১০ প্রকল্প অনুমোদন রংপুরে এ পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু ৩৯, আক্রান্ত ২২৪৮ পর্দা কেলেঙ্কারি: শর্তসাপেক্ষে দুই আসামির জামিন একনেকে ১০ প্রকল্প অনুমোদন এমপি পাপলুর বছরে আয় ৫৫ কোটি টাকা করোনায় আরো ৩৯ জনের প্রাণহানি ঘরে ঢুকে তরুণীকে গুলি করে, কুপিয়ে খুন করল প্রেমিক! ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো সিলেট এমপি পাপুলের পক্ষে রাষ্ট্রদূতের সাফাই নানা রহস্য! বিশিষ্ট সাংবাদিক কামাল লোহানীর মৃত্যুতে পরিবেশ মন্ত্রীর শোক করোনা রোগী সনাক্ত হয়ে সাতদিন সিএনজি চালিয়েছেন, কেটেছেন চুল-দাড়ি! মাসহ তামিমের পরিবারের চারজন করোনায় আক্রান্ত স্বামীর লিঙ্গ কেটে নেয়া স্ত্রী দিলারা গ্রেপ্তার করোনায় আক্রান্ত হলেন মাশরাফী ৬ মন্ত্রী, ১০ সাংসদ করোনায় আক্রান্ত নিজের অন্তঃসত্ত্বা মেয়েকে বিক্রি করলেন বাবা-মা বরিশালে করোনা উপসর্গে চিকিৎসকের মৃত্যু সরকারি নির্দেশনার পরও বিদ্যুতের ভুতুড়ে বিল, জানেন না প্রতিমন্ত্রী নারায়নগঞ্জের এমপি শামিম ওসমানেরও টাইম ছিলোনা আমার হাতে;ওসি রাশেদ মোবারক বিমানের টিকিট যেন সোনার হরিণ!  বদলে যাচ্ছে সিলেটের মেয়র, চেয়ারম্যান, কাউন্সিলরদের পদবি ইতালিতে-স্পেনে করোনার অস্তিত্ব শনাক্তে উঠে এল বিষ্ময়কর তথ্য  ওসমানীনগর থানার ওসির হুমকী :’রশি দিয়ে বেঁধে থানায় নিয়ে আসবো’  স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি করোনায় আক্রান্ত অনন্ত জলিলের ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হিরো আলম মুজিববর্ষ উপলক্ষে ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ  কুমিল্লায় নমুনা সংগ্রহকারী টিমের ওপর হামলার চেষ্টা অনন্ত জলিল ভাই আমাকে হতবাক করে দিয়েছেন: ইমন ধর্ষণের মামলা না নিয়ে ভিকটিম ও তার ভাইকে থানায় আটকে রাখেন ৪৮ ঘণ্টা! করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাক্কা যেভাবে সামলাচ্ছে চীন উদ্বোধনের অপেক্ষায় থাকা সেতু পানিতে ভেসে গেছে! সিলেট জেলা পুলিশের মানবিকতা  চাকরি হারানোর ঝুঁকিতে দেশের সোয়া কোটি মানুষ করোনা ভাইরাসে সরকারি চাকুরে ছাড়া কেউ ভালো নেই কুমিল্লায় গত ১৬ দিনে করোনা ‘উপসর্গ’ নিয়ে ৩৭ জনের মৃত্যু প্রয়াত নাসিম-কামরানকে নিয়ে প্রবাসীর কটুক্তি, আইসিটি আইনে মামলা মানবেতর জীবনযাপন করছেন কুয়েতের বাংলাদেশিরা  দ্বিতীয় শ্রেণির শিশুকে দুইবার ধর্ষণ আটক ১ সিলেটে পুলিশের ১৩ কর্মকর্তাকে বদলি সুন্দরবনের গভীর জঙ্গলে জলদস্যুদের অস্ত্রের কারখানার সন্ধান  নাসিমকে নিয়ে ‘কটূক্তি’, রাবি শিক্ষক গ্রেফতার আরও ভয়ংকর ভাইরাস, ২ দিনেই ৮ কোটি মানুষের মৃত্যুর শঙ্কা! সুশান্তের মৃত্যুর আগে ৪ জনকে ফোন কল, পুলিশি তদন্তে দানা বাঁধছে গভীর রহস্য হীরামনি ধর্ষণ-হত্যার সপ্তাহ পার, আসামি ধরায় নেই অগ্রগতি  ত্রাণের কার্ড দিতে চেয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ আইসোলেশন সেন্টারে রোগীর মৃত্যু  ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য চলে যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায় ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে, বিপাকে কিশোরীর পরিবার সাবেক মেয়র কামরানের মাগফিরাত কামনায় জেলা আ.লীগের দোয়া মাহফিল খালেদাকে বিশেষ বিমানে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দাবি সিলেটে ‘লকডাউন’ করার কোন নির্দেশনা আসে নাই’ স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ে, অপহরণকারী-কাজী গ্রেফতার অবৈধ উপার্জনে বড়লোক হতে চাইলে পুলিশের চাকরি ছাড়ুন’  সাঈদীকে প্রধানমন্ত্রী দেখিয়ে কাল্পনিক ‘মন্ত্রিসভা’ গঠন, যুবক গ্রেপ্তার চাঁদে জমি কেনা প্রথম বলিউড স্টার ছিলেন সুশান্ত! পুলিশ হাসপাতালের প্রশংসা চীনা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২৮ ২০০৯-২০২০ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ থেকে হারিয়ে গেল যেসব মহাতারকারা সিলেটের রাজনীতি সারাদেশের চেয়ে ভিন্ন : ড. আসিফ নজরুল সিলেটে বৃহস্পতিবার থেকে ‘লকডাউন’  ঢাকায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু  সিলেটে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হলো  চুনারুঘাটে প্রবাসী স্বামীর লিঙ্গ কেটে দিলেন স্ত্রী শাবানার ৬৮তম জন্মদিন  প্রবাসীর স্ত্রী’র দুই স্ত’ন কে’টে নিয়েছে প্রেমিক  নভেম্বরের মাঝামাঝি করোনা আরো ভয়াবহ হবে হাসি-আনন্দের বাংলাদেশ আবারও ফিরে আসবে: কাদের  সিলেটের এডিসি জেদান আল মুসা করোনায় আক্রান্ত কামরান সাহেব এর মৃত্যুতে প্যানেল মেয়রের গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ শ্বাসকষ্ট নিয়ে সিএমএইচে ভর্তি সাংসদ মোকাব্বির  মানুষ ঘুমালে করোনাভাইরাসও ঘুমায়: এমপি কামরান গণমানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন: প্রধানমন্ত্রী আমি বাসায় গিয়া অখন কারে আব্বা ডাকমু’ কামরানের ছেলে বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরুনিদ্রায় শায়িত হলেন কামরান  ১৭ বছর ধরে দুই নামে ভাতা তুলছেন ইউপি সদস্যের মা চোখের জল আর শ্রদ্ধায় কামরানকে শেষ বিদায় কামরান সাহেবের মৃত্যুতে আবুল কালাম চেয়ারম্যানের গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ  বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ  সিলেট আ.লীগের রাজনীতিতে কামরান রেখেছেন অসামান্য অবদান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  ভালো আছেন করোনায় আক্রান্ত দুই মন্ত্রী  চলে গেলেন কামরান Ptvnews24.com  সুশান্তকে হত্যা করা হয়েছে, দাবি মামার পুলিশ চাঁদাবাজি শব্দের সাথেই জড়িত থাকতে পারবে না’ করোনার ভয়ে মানুষকে না খেয়ে মরতে দিতে পারি না:প্রধানমন্ত্রী কালোজিরাতেই সেরে যাচ্ছে করোনা, মদিনার গবেষকদের বিস্ময়কর দাবি  লিটন দাস লিকনের মৃত্যুতে সম্পাদকের শোক প্রকাশ বিভিন্ন স্থানে রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউনের প্রজ্ঞাপন আজই ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ আর নেই  ডা. এমদাদকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় এনে হাসপাতালে ভর্তি মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে প্যানেল মেয়রের শোক রেডজোনে সবাইকে ঘরে ইবাদত করার নির্দেশ  চলে গেলেন ভারতের সবচেয়ে প্রবীণ ক্রিকেটার মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক চলে গেলেন মোহাম্মদ নাসিম মধ্যপ্রাচ্যের প্রবাসী কর্মীদের জন্যে দারুণ সুখবর সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী করোনা রোগীদের সঙ্গে পশুর চেয়েও খারাপ ব্যবহার হচ্ছে’ #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২৭ মৌলভীবাজারে আর্টিস্টিক জাতের লাল ঢেঁড়সের বাম্পার ফলন বাতিল হতে পারে এবারের হজ! রাজনগরে ৯৯ লিটার চোরাই মদ সিএনজিসহ আটক ১ করোনা পজিটিভ, ঘরে তালাবন্দি ২০ ঘণ্টা!  রাজনগরে গাছে ঝুলন্ত মেয়ের লাশ! তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এমপি পাপুলকে কারাগারে রাখার আদেশ  মৌলভীবাজারে পার্লার এর সামন থেকে নারী অপহরণ সামাজিক নিরাপত্তা খাতের বরাদ্দ অপর্যাপ্ত, বলেছেন অর্থনীতিবিদরা জরুরি ভিত্তিতে সিলেট করোনা হাসপাতালে লোকবল নিয়োগ  সিলেটে আরো ২টি করোনা টেষ্ট সেন্টার চালু হচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পেলেন মেছবা উদ্দিন খাঁন ভোক্তাদের সঙ্গে প্রতারণা, রেস্তোরাঁ মালিকদের হাজার বছর কারাদণ্ড  করোনায় পাল্টে যাওয়া নিয়মে সুবিধা পাবেন ব্যাটসম্যানরা! শামসুদ্দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৩ জনের মৃত্যু  এমপি মোসলেম উদ্দিনসহ করোনায় পরিবারের ১০ জন আক্রান্ত নগরীতে সিসিকের ৩য় দিনের অভিযান চলছে ৫০ জেলা পুরোপুরি লকডাউন, ১৩ জেলা আংশিক ঢাকাকে লকডাউন ঘোষণার দাবিতে হাইকোর্টে রিট স্ত্রী-কন্যা-শ্যালিকাসহ পাপুলের তথ্য চেয়ে দুদকের চিঠি দক্ষিণ সুরমার বস্তাবন্দি লাশের পরিচয় মিলেছে  পিরোজপুরে খাল থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার হঠাৎ লকডাউন তুলে নেয়া ‘হঠকারী সিদ্ধান্ত’ কুমিল্লায় ১৫ পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত  মে’য়েদের পাঁচটি অ’ঙ্গ বড় হলে স্বামীরা সৌভাগ্য’বান হয়ে থাকে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী’কে রাস্তায় ফেলে গেলেন স্বামী, কাছে টেনে নিলেন মাশরাফি ঘুমন্ত স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা Ptvnews24.com  মৃত্যু যখন অবধারিত তাতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই: প্রধানমন্ত্রী সবকিছু ঠিক থাকলে মানুষ হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ঘুরছে কেন?’ করোনা উপসর্গ নিয়ে পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম মেয়েটির মৃত্যু রাজনগরে এক নারী গণধর্ষণের শিকার  কোনো শিশুই বর্ণবাদী হয়ে জন্ম নেয় না, তাকে বর্ণবাদী করে গড়ে তোলা হয়’ যাদের আবেদন নিচ্ছে সিলেট পাসপোর্ট অফিস  করোনায় বরাদ্দকৃত তিন হাসপাতালই সমস্যায় জর্জরিত রংপুরে ১০ বছরের মধ্যে ধানের দাম সর্বোচ্চ তোমাকেই_মনে-পড়ে পর্ব_২৬ সিলেটে আরো ৫০ জন করোনা আক্রান্ত তোমাকেই_মনে-পড়েপর্ব_২৫ গৃহকর্মীকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যা, মরদেহ গুমের অভিযোগ আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে র‌্যাব পরিচয়ে চাঁদাবাজি, দুই সাংবাদিক কারাগারে  নদীতে ভেসে উঠল নিখোঁজ যুথীর মরদেহ চাচীর অনৈতিক কাজ দেখে ফেলায় শিশুকে হত্যা  লাল, সবুজ ও হলুদ এলাকায় যা করা যাবে, যা যাবে না  দেশে ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩১৭১  মেয়র আরিফের অভিযান চলছে, হাসান মার্কেটসহ দোকান পাট বন্ধ হচ্ছে যেভাবে এই ৯ দেশ করোনামুক্ত  করোনায় আক্রান্ত কামরানের জন্য দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়েছেন এড.বনশ্রী অপু কামরানের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত:সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন ছেলে শিপলু আইসোলেশন সেন্টার থেকে করোনা আক্রান্ত রোগীর পলায়ন! সিলেটে দেবোত্তর সম্পত্তি দখল : বাসা নির্মানের কাজ চলছে দ্রুত যে ভাবে করোনামুক্ত হলো নিউজিল্যান্ড স্ত্রী-শাশুড়িকে খুন করার রহস্য উদঘাটন যা বললেন আজগর করোনায়’ সৌদি রাজপুত্রের মৃত্যু ৬ দফা দাবি মানুষ বাঁচার অধিকার হিসেবে লুফে নিয়েছিলেন: প্রধানমন্ত্রী ৬৬ দিনের লকডাউনে গরিব হয়েছে ৬ কোটি মানুষ অ্যান্টিবডির সনদ রয়েছে, তবু হজ ক্যাম্পের কোয়ারেন্টিনে ডা. ফেরদৌস!  করোনার ‘অ্যান্টিবডি’ চিকিৎসায় বড় সাফল্যের দাবি! ঘরে তালা লাগিয়ে উধাও করোনা আক্রান্ত স্বামী-স্ত্রী ফের বিপাকে আনুশকা এমপি পাপুল কুয়েতে গ্রেপ্তার দারিদ্র্য বেড়ে ৩৫ শতাংশ হয়েছে করোনার কারণে কামরানকে নিয়ে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স ঢাকার পথে  শঙ্কটাপন্ন অবস্থায় কামরান, এয়ার এম্বুল্যান্সে নেওয়া হচ্ছে ঢাকায়  রেড জোন সিলেট বিভাগ লকডাউন! লাশ পুড়িয়ে শেষ করতে পারছে না ভারত! #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২৪ #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২৩ সিলেটে ৬ মাসের ভাড়া মওকুফের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি সিলেটে এবার চিকিৎসা না পেয়ে আ.লীগ নেতার স্ত্রীর মৃত্যু বঙ্গবন্ধুর লেখা ছয় দফা Ptvnews24.com আমার মা খুব খারাপ ছবি পাঠায়! ৭ জুন ছয় দফা, শহীদের রক্তে লেখা র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরোয়ার আলম স্ত্রীসহ করোনা আক্রান্ত হেলিকপ্টারে যশোর থেকে ঢাকা আনা হল অসুস্থ চিকিৎসককে মরণব্যাধী কোলন ক্যান্সারের লক্ষণ ও প্রতিকার বিশেষ দিনে ঝাড়ু হাতে সালমান যেসব হাসপাতাল রোগী ফেরত দিচ্ছে,তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে তথ্যমন্ত্রী বিয়ের ৬ মাস পর করোনায় আক্রান্ত দম্পতি, স্বামীর মৃত্যু রোববার থেকেই ঢাকায় লকডাউন  মৃত্যুর রেকর্ড, আক্রান্তে ইতালিকেও ছাড়িয়ে গেল ভারত শামসুদ্দিনে ভর্তি হলেন সাবেক মেয়র কামরান  মঞ্জু মিয়ার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী  গ্রামের সরল মানুষগুলোকে লোভ দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা ‘হাতিয়েছেন’ এই ইউপি সদস্য  করোনার বেশি ঝুঁকিতে রক্তের ‘এ’ গ্রুপ, কমে ‘ও ভেন্টিলেটর আমদানিতে দুর্নীতির কালো হাত করোনাভাইরাস: আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠতে কতদিন লাগে? সিলেটে বিনা চিকিৎসা রোগীর মৃত্যু: হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিলের দাবি চার হাসপাতালে ঘুরে বিনা চিকিৎসায় বন্দরবাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ীর মৃত্যু জামালপুরে স্কুলছাত্রী হত্যার ৭ দিনেও মামলা নেয়নি পুলিশ জামালপুরে পুলিশের কাছ থেকে ৮ আসামি ছিনতাই সিলেটে বিনা চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ পররাষ্ট্রমন্ত্রী, ব্যবস্থা গ্রহনের কঠোর নির্দেশ এবার করোনা আক্রান্ত সাবেক মেয়র কামরান  শাবির ল্যাবে আরো ২২ জন শনাক্ত: শনিবার বন্ধ থাকবে ল্যাব দ্রুত রেডজোনের দিকে ধাবিত হচ্ছে মুন্সিগঞ্জ  হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন ঝুঁকিপূর্ণ বলা গবেষণা প্রতিবেদন প্রত্যাহার করোনাকালেও তিন মাসে ধর্ষণের শিকার ২০৬ নারী-শিশু আমার বাবা তো দুনিয়াই বদলে দিল!’ মেয়েটা বড় হয়ে গেল আট দিনে  ভোরে হঠাৎ ব্রেন স্ট্রোক, নাসিমের শারীরিক অবস্থার অবনতি  শ্রীমঙ্গলে মা-মেয়ের রহস্যজনক মৃত্যু  নিজের চাইতে ১৮ বছরের ছোট এই যুবককে বিয়ে করছেন সুস্মিতা সেন! করোনায় বিশ্বে একদিনেই ৫ হাজার মৃত্যু  করোনা দুর্যোগে সেবা নয়, ব্যবসাকেই বেছে নিচ্ছে বেসরকারি হাসপাতালগুলো  ইমামের গলায় জুতার মালা, চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৩ এক কন্যা শিশুকে ধর্ষনের অভিযোগে ধর্ষক সোহাগ গ্রেফতার #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২২ যে কারনে লিজাকে ডিভোর্স দিলেন : এমপি মাত্র ৩ লাখ টাকায় পারিবারিক ভ্রমণে ভাড়া পাবেন আস্ত একটা বিমান!  পররাষ্ট্রমন্ত্রী শামসুদ্দিন হাসপাতালে ২ টি ভেন্টিলেটর প্রদান করছেন  ঢাকায় ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাসের কর্মকর্তার মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক  জীবন না জীবিকা? বাংলাদেশে পূর্ণাঙ্গ লকডাউন কাম্য হলেও সম্ভব কি?  মহড়ায় ‘গুলিবিদ্ধ’ ইসরায়েলি লেফটেন্যান্ট কর্নেল! চলতি মাস থেকেই পোশাক শ্রমিক ছাঁটাই হবে : রুবানা হক করোনা জয়ের গল্প শোনালেন ইউএনও আইরিন আক্তার ভেন্টিলেটর নেই হাসপাতালে, মারা যাচ্ছে রোগী  করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদনে ৫ কোম্পানি চূড়ান্ত করল যুক্তরাষ্ট্র  আশপাশে কতজন করোনা রোগী? জানিয়ে দেবে স্মার্টফোন সিলেটে করোনা আতঙ্কের মধ্যেও বেপরোয়া এনজিও দাদন ব্যাবসায়ীরা  করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে ছুটিতেই ফিরবে সরকার সন্তানেরা ফেলে যাওয়া মায়ের করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি পরকীয়ায় ধরা পড়ে ছাত্রলীগ নেতার বিয়ে! দেখতে গাজরের মতো, খেলেই মৃত্যু! মৃতদেহ থেকে ছড়ায় না করোনা, তাই শেষকৃত্যে নয় আতঙ্ক সিলেটে যুবক খুনের ঘটনায় ২ জন আটক সরকার সঠিকভাবে করোনা মোকাবিলা না করলে মৃত্যুহার আরো বেশি হতো: তথ্যমন্ত্রী বিশ্বজুড়ে আবারও ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা  করোনাভাইরাস জয় করলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বাংলাদেশিদের আয়ারল্যান্ডের ভিসা সহজ করতে অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর করোনায় ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত ২৬৯৫, মৃত্যু ৩৭ নতুন করে কড়াকড়ি আরোপের চিন্তা হাঁটু গেড়ে বসে আন্দোলনকারীদের সামনে কাঁদলেন মার্কিন পুলিশ! মৃত্যু বেড়ে ৩ লাখ ৮২ হাজার, আক্রান্ত ৬৪ লাখ ৮৫ হাজার মানুষকে ‘বিশ্বাস’ করে প্রাণ দিল এই হাতি  এক চিকিৎসক রোগী দেখেন ছয় হাসপাতালে! #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২১ এবার করোনায় আক্রান্ত মেয়র আরিফের স্ত্রী শামা  এসএসসিতে অকৃতকার্য: ফরিদপুরে ২ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা! গ্রিসের রাজধানী এথেন্সের সব মসজিদ ধ্বংস করা হয়েছে: ৩ মাস পর উপজেলা প্রশাসনের বৈঠকে রেমা চা বাগান চালুর সিদ্ধান্ত ন্যাশনাল ব্যাংকের ৬০ লাখ টাকা উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪ যুবলীগ নেতার হাতে অমানবিক নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ, ভিডিও ভাইরাল  চার’শ মানুষকে লিবিয়ায় পাচার করেছে হাজী কামাল করোনায় মারা যাওয়া নার্সের পরিবারকে ২ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র দিচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী করোনায় দিশেহারা সিলেট : ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৫৫, মৃত্যু ৪  ৬ হাসপাতাল ঘুরে পেলেন না চিকিৎসা, অবশেষে অ্যাম্বুলেন্সেই রোগীর মৃত্যু ভয়াবহ ভূমিধসে ২০ জনের মৃত্যু Ptvnews24.com  স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতামত উপেক্ষা করে গণপরিবহন চালু কার স্বার্থে ড. কামাল হোসেন? করোনা আগের মতোই বিপজ্জনক: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা লিবিয়ার ‘ভয়ঙ্কর’ মানবপাচার চক্রের সদস্য সিলেটের রফিক বাসাতে করোনা চিকিৎসা নেয়ার ক্ষেত্রে জরুরি যে বিষয় জানা প্রয়োজন করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করল ছাত্রলীগ Ptvnews24.com ভূমধ্যসাগরে ৩৬ বাংলাদেশি নিহতের প্রধান আসামি গ্রেফতার করোনার মধ্যে ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়ছে ইবোলা ভাইরাস ১ কোটি ৯০ লক্ষ টাকার বাজেট ঘোষণা কানাইঘাট দিঘীরপার ইউপিতে করোনায় চাঁদপুরে মা-বাবা ও সন্তানের মৃত্যু! আরও ৯৩ করোনা রোগী শনাক্ত সিলেট বিভাগে একদিনে অফিস করতে পারবেন না ২৫ শতাংশের বেশি কর্মকর্তা এবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত এ ঋণ শোধ হবার নয় ptvnews24.com জুনেও কিস্তি আদায় বন্ধ, জোর করলে লাইসেন্স বাতিল পরিবারের কেউ করোনা আক্রান্ত হলে কী করবেন দেশে করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৩৮১ কল করলেই রিসিভ করবেন পূজা ব্যাংক ঋণের সুদ মওকুফ ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী সিলেটে আইসোলেশনে ২ রোগীর মৃত্যু ১০ হাজার ছুঁইছুঁই মৃতের সংখ্যা মেক্সিকোতে আমি রাষ্ট্রদ্রোহী হলে দেশপ্রেমিক কারা? ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যায় পাচারকারী চক্রের সদস্য গ্রেফতার  ভাড়া করা কল’গার্ল হিসাবে এলেন নিজেরই স্ত্রী! গণপরিবহনে ভাড়া বৃদ্ধি স্থগিত করতে আইনি নোটিশ তৃতীয় উইকেট নিলেন তাপস, এবার চাকুরিচ্যুত দুর্নীতিবাজ কর কর্মকর্তা মৃত্যু বেড়ে ৩ লাখ ৭৩ হাজার, আক্রান্ত ৬২ লাখ ৬৩ হাজার স্বামীর জিহ্বা কামড়ে কেটে নিল স্ত্রী  #তোমাকেই_মনে-পড়ে#পর্ব_২০ করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাংক ঋণের ২ হাজার কোটি টাকা সুদ মওকুফ করা হবে: প্রধানমন্ত্রী ফের আসছে সাধারণ ছুটি! আরও কঠোর হবে লকডাউন ধাপে ধাপে খোলা হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান : প্রধানমন্ত্রী লেনদেন শুরু ৬৬ দিন পর , উত্থানে সূচক গুগলের বিরুদ্ধে মামলা অবৈধভাবে অবস্থানগত তথ্য সংগ্রহের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী ১৯তম প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করলেন করোনায় প্ল্যাজমা থেরাপির বন্ধ করতে বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঢাকা গেল সুবর্ণ এক্সপ্রেস ৩৮৭ জন যাত্রী নিয়ে সবার সেরা কলেজিয়েট জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে যাত্রী থাকার কথা ২৬ জন, উঠেছিলেন ৫৭ জন খুব মিস করছি ব্যস্ত জীবনটাকে -ইয়ামিন হক ববি এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ  বিএনপি দু‘দফা ক্ষমতায় থেকেও জিয়া হত্যার বিচার না করা রহস্যজনক’  একদিনে দুইবার শপথ পড়লেন হাইকোর্টের ১৮ বিচারপতি এসএসসি’র ফল প্রকাশ সকাল ১১টায় এসএসসির রেজাল্ট দেখুন সহজে সবার আগে শিক্ষক এর ধর্ষণে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, শিক্ষক গ্রেপ্তার  #তোমাকেই_মনে_পড়ে_পর্ব=১৯ ভারতে লকডাউন বাড়ল একমাস  সব খুলে দেশকে বিপদে ফেলেছে সরকার কিমের যুদ্ধ ঘোষণা অনৈতিক যৌন আচরণের বিরুদ্ধে করোনা রোধে আরও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সম্পৃক্তির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর টিভি নাটকের শুটিং ৪ শর্তে শুরু হচ্ছে ফল প্রকাশ এসএসসি ও দাখিলের কাল রোববার রোববার দক্ষিণাঞ্চলের ৩৪ জেলায় লঞ্চ চলাচল শুরু কৃষকের স্বপ্ন কেড়ে নিচ্ছে ইটভাটার ধোঁয়া  শনাক্ত দেড় হাজারের বেশি, মৃত্যু ২৮ জনের  জীবিকা বাঁচাতেই জীবনের এই ঝুঁকি  একদিনে বিশ্বে সোয়া লাখ করোনা রোগী শনাক্ত করোনা জয় করে ফিরলেন চুয়াডাঙ্গার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট  সিলেটে এক ইউপি চেয়ারম্যান করোনায় আক্রান্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশের প্রথম পুরুষ নার্সের মৃত্যু তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=১৮ একজন প্রবাসীর অশ্রু শিক্ত কিছু কথা। ক্যান্সার আক্রান্ত পশু-পাখির মাংস চিনবেন যেভাবে  রসুন আর মধু একত্রে খেলে যা হয়  লকডাউন তুলে নেয়া সরকারের সবচেয়ে বড় আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি শ্রমিক হত্যা ৭দিনেই দশ হাজার আক্রান্ত, পরিস্থিতি যেতে পারে নিয়ন্ত্রণের বাইরে ত্রাণ দিতে গিয়ে পরিচয়-প্রেম, অতঃপর বিয়ে! বাবার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ, সাফাই গাইলেন শেহনাজ গিল! লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি নিহত বেঁচে যাওয়া এক জন যা বললেন করোনা বিনাশে মন্দিরে ‘নরবলি’ দিলেন পুরোহিত আইনকে ধিক্কার চেয়ারম্যানের বাসায় বাল্যবিবাহ  ট্রেন চলবে রোববার থেকে সিলেটে করোনা রোগীর চিকিৎসায় আরেকটি হাসপাতাল প্রস্তুত করা হচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  ফুসফুসে করোনা সংক্রমণ রুখতে আসছে ইনহেলার শ্বাসকষ্ট নিয়ে শামসুদ্দিনে কাউন্সিলর আজাদ  ইউনাইটেডের ১২ অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রের ৯টিই মেয়াদোত্তীর্ণ আপনি করোনায় পজিটিভ? সুস্থ হবেন ২ দিনেই – ptvnews24.con  বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৩ লাখ ৫৭ হাজার ক্ষমার বিরল দৃষ্টান্ত গড়লেন ইমরুল। কাতারে করোনামুক্তির নতুন রেকর্ড তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=১৭ হবিগঞ্জে ভয়াবহ সংঘর্ষে ১৯ পুলিশসহ শতাধিক আহত, আটক ৪৯  খুলছে সরকারি অফিস, স্কুল-গণপরিবহন বন্ধই থাকছে ছুটি না বাড়লেও গণপরিবহণ বন্ধ থাকবে  সিলেটে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন ইউপি সচিব  দেশের সব হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার নির্দেশ অসামাজিক কার্যকলাপ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে আটকে বিয়ে দিলেন এলাকাবাসী  মান্নাকে ডেকে কথা বললেন খালেদা জিয়া শনাক্ত দেড় সহস্রাধিক, মৃত্যু ২২ জনের এস আলমের সুগন্ধার বাড়ি হঠাৎই স্তব্ধ, সুনসান নীরবতা লকডাউনে কাজ নেই’ হতাশায় অভিনেত্রীর আত্মহত্যা ছুটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে বৃহস্পতিবার সিলেট নগরীতে যুবককে ছুরিকাঘাত করে হত্যা  প্লাজমা থেরাপি নিলেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী মসজিদে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া টাকা আত্মসাৎ করায় ইমামের কারাদণ্ড আ’লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৩, আটক ৩  ৭০ দিন পর নারীর শরীরে মিলল করোনার উপসর্গ! সিলেটের করোনা পরিস্থিতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্বেগ, প্রস্তুত হচ্ছে আরেকটি হাসপাতাল ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন ইটালি ইয়েসী যুবলীগ শাখার পিযুষ দাস ভর্তি হতে না পেরে হাসপাতালের গেটেই সন্তান প্রসব লিভারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর যে ৫ অভ্যাস কোন দেশ কবে করোনামুক্ত হবে, বের করলেন বিজ্ঞানীরা যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার শ্বশুর বাড়িতে ঈদ করা নিয়ে প্রবাসী স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া, স্ত্রীর আত্মহত্যা  ঈদে বাইরে যাওয়া ‘আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত’ করোনা আক্রান্ত নাগরিককে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা থেকে ফিরিয়ে নিল তুরস্ক করোনায় মারা গেছেন ঢাকার সাবেক এমপি হাজী মকবুল যেভাবে ঈদ উদযাপন করবেন খালেদা জিয়া ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন খাদিমপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃআফছর আহমদ ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন উমরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ গোলাম কিবরিয়া ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রুস্তমপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃশাহাব উদ্দিন শিহাব অসহায় মানুষের হাতে এসি নির্মলেন্দু চক্রবর্তীর ইফতার বিতরণ  ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আলহাজ্ব শহিদ আহমদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দিঘীরপাড় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলী হোসেন কাজল শামসুদ্দিনে মারা গেলেন করোনা আক্রান্ত সিভিল সার্জন উপসর্গ লুকিয়ে বিয়ে, তিনদিন পর নববধূ করোনা পজেটিভ নতুন করে আরও ১৮৩০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশি কনের সাথে অনলাইন পাকিস্তানি বরের বিয়ে! খুলে দেওয়া হলো ঢাকার সব প্রবেশপথ, ব্যক্তিগত গাড়িতে বাড়ি ফিরছে মানুষ অনিয়ম এর কারনে রোটার‍্যাক্ট জেলা প্রতিনিধি আহাদ বহিষ্কার গুজবের পোস্টে লাইক, কমেন্ট, শেয়ার করলেই আইনানুগ ব্যবস্থাঃ র‍্যাবের মহাপরিচালক শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণেই ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি সীমিত: হাছান মাহমুদ একইসঙ্গে করোনাভাইরাস ও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় কর্মকর্তা ৫০ পয়সা আমের কেজি ওসমানীনগরে বৃষ্টি উপেক্ষা করে আল হাসানাহ’র উদ্যোগে ১০০০ রোজাদারের মাঝে ইফতার বিতরণ। তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=১৬ করোনায় আক্রান্ত আ.লীগ নেতা নাদেল ট্রাম্পকে হত্যার পুরস্কার সাড়ে ২৫ কোটি টাকা আম্পানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮০ ptvnews2. Com সিলেটে করোনার ভয়াবহ বিস্তার, একদিনেই আক্রান্ত ৬৭  খুলছে বিমানবন্দর,৩ জুন থেকে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা তুলছে ইতালি। পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী নিলে কঠোর ব্যবস্থা আম্ফানে ক্ষতির প্রাথমিক হিসাব ১১০০ কোটি টাকার ৩১ মে এসএসসির ফল প্রকাশ কাতারে ঈদের নামাজ সঙ্ক্রান্ত খবর। এবারের ঈদের নামাজ কোথায় কীভাবে পড়বো? বাংলাদেশকে ফের বাঁচিয়ে দিলো সুন্দরবন। যে কারনে ‘আমার হবিগঞ্জ’-এর সম্পাদক সুশান্ত গ্রেপ্তার পিপিই নিয়ে অভিযোগ, ডাক্তারকে পাঠানো হলো মানসিক হাসপাতালে রাজনগরে ইমাম-মুয়াজ্জিন ও পুরোহিতদের অনুদান প্রদান রিমান্ডে আলোচিত সিলেটের দুই ছাত্রলীগ নেতা সিলেটে দুই ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার দেশে আবারো সর্বোচ্চ আক্রান্ত, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮৬ দুর্বল হয়ে পড়ছে সুপার সাইক্লোন ‘আম্পান’ কানাইঘাটে Covid-19 পজেটিভ ২জন। তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=১৫ নতুন করে আরও ১৪৯১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত আম্পানের প্রভাবে বিভিন্ন জেলায় ১০ থেকে ১৫ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস দেখা দিতে পারে এক দেশ পিটিয়ে ঘরে ঢুকিয়েছে, আমরা তো তা করতে পারি না: আইজিপি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সব গণপরিবহন চলাচল বন্ধ অনন্ত জলিলের ভালোবাসা দারুল উলুম দেওবন্দের শাইখুল হাদিস আল্লামা সাঈদ আহমদ পালনপুরীর ইন্তেকাল তোমাকেই_মনে_পড়ে_পর্ব=১৪ ম্যাডোনার শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি এই ঈদ যেন শেষ ঈদ না হয়: আইজিপি ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১২৫১ ১০ দেশ থেকে প্রত্যাবাসিত হবে সাড়ে ২৮ হাজার বাংলাদেশী শিল্পার স্বামীকে ‘পেটানো’ ভিডিও টিকটক ভাইরাল লেজেন্ডদের শিখাবো কিভাবে ২০২০ সালে মিউজিক করতে হয় : নোবেল করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে চীনা কমিউনিস্ট পার্টি কাতারের প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সে রাজাগঞ্জ বাজারে ঈদ শপিংয়ে উপচেপড়া ভিড়! আসছে ‘আম্ফান’: বঙ্গোপসাগরে এমন ঝড় এই শতাব্দিতে প্রথম পিএস করোনায় আক্রান্ত, কোয়ারেন্টাইনে বিভাগীয় কমিশনার অসহায় একশত পরিবারকে নগদ অর্থ প্রদান। ৯০ টাকায় সারবে করোনা: #তোমাকেই_মনে_পড়ে_পর্ব=১৩ আদিবাসীদের বাঁচাতে করোনা হাসপাতাল হচ্ছে আমাজনে তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=১২ ১৩০ শয্যার দুই করোনা হাসপাতাল ৭০ লাখ মানুষের! এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে স্ত্রীর পর মারা গেলেন শাশুড়িও  আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস তরুণীর নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে, সংসার ভাঙার উপক্রম করোনা পরবর্তী জীবন থেকে উধাও হবে যেসব জিনিস লকডাউনে’ যাচ্ছে সূর্য, সতর্কতা জারি নাসার করোনার ঘরোয়া চিকিৎসা: ড. বিজন শীলের পরামর্শ সরকার পৌনে পাঁচ কোটি মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশেই শুধু আমরা সমর্থন পাইনা: রোহিত দেশের সর্ববৃহৎ কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতাল উদ্বোধন রোববার ‘ঈদে পরিস্থিতি জটিল হতে পারে গ্রামে যাওয়ার প্রবণতায় #তোমাকেই_মনে_পড়ে_পর্ব=১১ কাতারে করোনা অবস্থা কুলাউড়ায় দুই হাজার পরিবারের পাশে নাদেল এখন তামিম-মুশফিকের ঘরই সেলুন! চীনে গত এক মাসে নতুন মৃত্যু নেই আন্তর্জালে হচ্ছে চলচ্চিত্র উৎসব! চট্টগ্রামে শনাক্তের হার বাড়ছে কমছে ঢাকায় তিন মিনিটের ভিডিওকলে ৩৫০০ কর্মীকে ছাঁটাই করল উবার করোনার মাঝেই সেনাসদস্যের বউকে নিয়ে পালালেন ছাত্রলীগ কর্মী  লকডাউনে কী করলে সুস্থ ও সবল থাকবেন বাংলাদেশিসহ ৫ লাখ অভিবাসীকে বৈধতা দিল ইতালি যেভাবে ধাপে ধাপে মৃত্যু ঘটায় করোনা ভাইরাস  ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর বাজারে স্মাইল চ্যারিটি’র ইফতার বিতরণ। তোমাকেই_মনে-পড়ে -পর্ব_১০ কাতারে নতুন আইন নাতনিকে বিয়ে করা সেই ‘কথিত নানা’ গ্রেপ্তার পরীক্ষামূলক প্লাজমা থেরাপির কার্যত্রম শনিবার থেকে শুরু বাসা ভাড়া দিতে না পারায় দুই সন্তানসহ এক নারী রাস্তায় স্বাস্থ্য, সম্পদ ও মানবতা সুরক্ষায় মাহে রমযান করোনায় ই-কমার্স খাতে ৬৬৬ কোটি টাকা ক্ষতি প্রতি মাসে জাপানের সুমো কুস্তিগীর করোনায় মারা গেলেন দেশে প্রথম করোনায় মৃত ব্যক্তির পোস্টমর্টেম হলো সিলেটে এক হাতে ট্রাকের দড়ি অন্য হাতে শিশু! মুশফিক-তামিম-রিয়াদের দেয়া ত্রাণ ছিনতাই। খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দুস্থ ক্রীড়াবিদদের হকি তারকা প্রিন্সের জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আর নেই  ছুটি বাড়ল ৩০ মে পর্যন্ত করোনার মধ্যে ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ করলো মাদ্রাসার হাফেজ  ঘরে থাকবেন নাকি কবরে যাবেন সিদ্ধান্ত আপনার: ড. বেনজীর আহমেদ ঈদের আগে খুলছে না গণপরিবহন, অন্য যান চলাচলেও কড়াকড়ি  যে সব সতর্কতা মেনে চলবেন লকডাউনের পর করোনা নিয়ন্ত্রণে ৫ বছর লাগবে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনা সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকবে কানাডা গণভবন থেকেই দিনরাত ক্লান্তিহীন পরিশ্রম করে দেশের সব কিছু সামলাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীর গায়ে আগুন দিল পাষন্ড স্বামী, আটক-১  কালবৈশাখী ঝড়ের পূর্বাভাস ptvnews24.com আড়াই হাজার টাকা করে পাবে ৫০ লাখ পরিবার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি বহিষ্কার তুলা রাশির আজ আর্থিক উন্নতির যোগ রয়েছে, দেখে নিন আপনার রাশিফল  নিখোঁজ সংবাদ তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=৯ প্রতি বছরের মত মুক্তি পাচ্ছেন ৯০ জন প্রবাসী স্বাস্থ্যকর্মীদের বিনামূল্যে ১ লাখ রিটার্ন টিকিট দিচ্ছে কাতার এয়ারওয়েজ ১৮ বস্তা চাল চুরি করে মহিলা মেম্বার কারাগারে চেয়ারম্যানের বাসার গৃহকর্মীকে ‘ধর্ষণের পর হত্যা’কে আত্মহত্যা বলে প্রচার!  ইচ্ছা করে করোনা ছড়ানো সেই যুবক এখন আইসোলেশনে চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর বিনামূল্যের ‘এক মিনিটের বাজার’ একদিনে সর্বোচ্চ ১৯ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১৬২ আইসোলেশনে দুই করোনা রোগীর প্রেম, অত:পর বিয়ে মির্জা ফখরুলকে ডেকে একান্তে কথা বললেন খালেদা জিয়া আজকের ইফতার ও সেহরির সময়সূচি কাজী আশরাফের খুঁটির জোর কোথায়? কার ইন্ধনে তিনি এতোবড় দু:সাহস দেখাচ্ছেন? মাকে নিয়ে গান গাইলেন অপি করিম বাংলাদেশে এক-চতুর্থাংশই উপসর্গহীন করোনা রোগী ছেলের পর প্রয়াত মেয়র মহিউদ্দিনের স্ত্রীও করোনায় আক্রান্ত  উহানে ফের করোনার হানা, ১ কোটি মানুষকে পরীক্ষা নতুন করে আরও ১৫২৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রনজিৎ সরকারসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তার ১  সিলেটে করোনা আক্রান্ত সেই চিকিৎসক হাসপাতালের আইসিউতে  ভ্যাকসিন পরীক্ষা করছে বায়োএনটেক-ফাইজার  করোনা: বাংলাদেশ এক কদম এগিয়ে। বেড়েছে ছিনতাই দেশজুড়ে কিশোরগঞ্জে ভয়াবহ সংঘর্ষে একজন নিহত, ৩০ বাড়িতে ভাংচুর-আগুন  করোনাকালে সরকারের ৪৭ নির্দেশনা  ১৭টি নিয়ম মেনে খুলতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্পত্তির লোভে বৃদ্ধ বাবাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত, ইমাম আটক ডা. শিউলি পু’রুষের স’হবাস ছাড়াই স’ন্তান জ’ন্ম দিলেন। আজকের ইফতার ও সেহরির সময়সূচি করোনার ছোবলে প্রাণহানি ছাড়াল ২ লাখ ৮০ হাজার  করোনায় অভাবের তাড়নায় বন্য আলু খেয়ে রোজা করছেন বৃদ্ধ আরফান আলী বগুড়ায় সাকিব মুশফিকের ত্রাণের পার্টনারশিপ রাজনগরে পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত!  তোমাকেইমনেপড়েপর্ব=৭ বিশ্ব মা দিবস আজ ptvnews24.com জানেন কি, এই বিশেষ দিনেই কেন পালন করা হয় বিশ্ব মাতৃদিবস  কাতারে করুনার আবডেট মা হওয়া অসম্ভব ছিল, কিন্তু যেভাবে সম্ভব করে তিন সন্তানের মা হলেন মুকেশ আম্বানীর স্ত্রী ছাত্রলীগে কোন অপরাধীর স্থান নেই: জয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন খালু, মোবাইলে ধারণ করেন খালা! জার্মানির ৮৪ শতাংশ করোনা রোগী সুস্থ দ্বিতীয় দফায় নোয়াখালীর ভাসানচরে ২৭৭ রোহিঙ্গা  মাকে মাটিতে পুঁতলেন ছেলে, তিনদিন পর বেরিয়ে এলেন তিনি! মসজিদে ইমামের সংস্পর্শে ৬ জন করোনায় আক্রান্ত গণমাধ্যম নিয়ে কিছু কূটনীতিকের মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য : ড. মোমেন বাংলাদেশের দুর্নীতি, ৪২ ফুট খালে ১৬ ফুট ব্রিজ! ডিম খান, তবে খোসা ফেলবেন না করোনা ভাইরাস মনুষ্য বীর্যেও মিলেছে যেভাবে বুঝবেন পরকীয়ায় আসক্ত সঙ্গী করোনায় ৯৬ শতাংশ শিশুর জন্ম হয়েছে নরমালে, শিক্ষা নিতে বললেন ব্যারিস্টার সুমন শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ২ জনের মৃত্যু ptvnews24.com ১৭ গুণ কালোজিরার যত রোগের যম এক কোয়া রসুন সিলেটের সব মার্কেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত  স্প্রে করা হবে দেশের সব কারাগারে ‘ভাইরাস জিরো’ লকডাউনে ক্ষুধা না লাগার কারণ ptvnews24.com তিন শতাধিক পরিবারের পাশে দাঁড়াল সাকিবের ফাউন্ডেশন ‘অনৈতিক সম্পর্ক’ ভাবীর সঙ্গে, বাধা কাটাতে ভাইকে খুন করোনা নিয়ে রিসার্চ করা সেই চীনা বিজ্ঞানীকে গুলি করে হত্যা  Covid-19 করোনাভাইরাস সঙ্ক্রান্ত ব্রেকিং নিউজ। মসজিদের ইমাম পেটালেন নিজ বৃদ্ধ বাবাকে! সব দিক সামলাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ptvnews24.com লকডাউন না তুলতে ফের হুশিয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সিলেট করোনা ইউনিট থেকে সুস্থ হয়ে ফিরলেন ৫ জন কবিগুরুর ১৬০তম জন্মজয়ন্তী তোমাকেই মনে পড়ে- পর্ব=৬ সিলেটের কৃতী সন্তান মাসে ২ হাজার টাকা করে পাবে ২০ লাখ পরিবার  মারা গেছেন ‘গরিবের রবিন হুড’ ptvnews24.com আন্দোলনে সিলেটের মহিলা কাউন্সিলররা ভুল নমুনা নেয়ায়’ আসছে না সঠিক ফলাফল  করোনা: সবচেয়ে কম মৃত্যু হার যে দুটো দেশে  করোনার ঝুঁকি বেশি যে রক্তের গ্রুপে করোনার ওষুধ বাংলাদেশে উৎপাদন হবে চলতি মাসেই মসজিদগুলো আজ থেকে আবারো উন্মুক্ত হচ্ছে করোনা যুদ্ধে বিশ্বে জয়ী প্রায় সাড়ে ১২ লাখ মানুষ মিথ্যাচার পরিহার করে সরকারকে সহযোগিতা করুন টাকা নেই, পেশোয়ারে রাজ ‘কাপুর হাভেলি’তে মিউজিয়াম বানাতে অক্ষম পাকিস্তান রাশিয়ায় চার দিনেই ৪০ হাজার করোনা রোগী! তোমাকেইমনেপড়ে_পর্ব=৫ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পরে সুস্থ হওয়া একজন বাংলাদেশীর বক্তব্য পুলিশ বক্সে বোমা হামলা: জিজ্ঞাসাবাদে বেরোলো চাঞ্চল্যকর তথ্য  কাতারে এক রুমে চার জনের বেশি নয় আজকের কাতার শামসুদ্দিন থেকে পালিয়ে যাওয়া বিশ্বনাথের নারীর করোনা শনাক্ত, ৪ বাড়ি লকডাউন সাংবাদিকের নয়, রাষ্ট্রের হাতে হাতকড়া পরানো হয়েছে করোনায় আক্রান্ত প্রায় ১২ লাখ মানুষ সুস্থ হয়েছেন সিলেট ওসমানী মেডিকেলের ১৬ চিকিৎসকের করোনা শনাক্ত করোনায় বাঁচলেও অনাহারে মারা যেতে পারেন কয়েক কোটি মানুষ! দুর্ভিক্ষের ইঙ্গিত রাষ্ট্রপুঞ্জের ৬ কোটি টাকা অনুদান পেল এফডিসি, বেতন পাচ্ছেন ২৬১ কর্মী ত্রাণ চোরদের সর্বোচ্চ শাস্তি ও দল থেকে স্থায়ী বহিস্কার : মাহবুব উল আলম হানিফ ১১ মে অনুশীলনে নামছে রিয়াল সীমিত পরিসরে দোকানপাট খোলা যাবে ১০ মে থেকে কেহ গালি দিলে বল ‘‘আমি রোযাদার’’ টিকাদান যখন স্থগিত,সাড়ে তিন কোটি শিশুর টিকার কী হবে? বিটিভির মহাপরিচালক স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত পুলিশ অফিসার পরিচয় দিয়ে সিলেটে ট্রাক ছিনতাইয়ের অভিযোগে জগন্নাথপুরের ছিনতাইকারী গ্রেফতার ঈদে আন্তঃজেলা পরিবহনও বন্ধ থাকবে যে সকল প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত হানবে এ মাসেই বরিশালে করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আরেকজনের মৃত্যু  নারায়ণগঞ্জে ৫৫ র‍্যাব সদস্যের করোনা শনাক্ত  কাতারে করোনায় আক্রান্ত প্রায় তিন হাজার বাংলাদেশি প্রতিটি কারখানায় মেডিকেল টিম গঠনের নির্দেশ কোভিড-১৯ এর নতুন উপসর্গ সাকিবের ঘরে এবার ‘জান্নাত’ তোমাকেইমনেপড়ে_ #পর্ব_৪ কাতার বিশ্বকাপের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর করোনায় আক্রান্ত। জরুরি প্রয়োজনে ‘রেমডেসিভির’ ব্যবহারের অনুমোদন দিল যুক্তরাষ্ট্র। —-কভিড নাইন্টিন—- লেখকঃ জান্নাতুল ফেরদৌস কাতারে আজকের করোনাভাইরাস (Covid-19) এর খবর। ভয় দেখিয়ে চাঁদা দাবি, সাব ইন্সপেক্টর ক্লোজ Today is the great May Day জীবিকা হারানোর ঝুঁকিতে বিশ্বের ১৬০ কোটি মানুষ রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত অবশেষে খুলা হলো মসজিদুল হারাম ও নববী ট্রেন চলবে আজ থেকে মৃত্যু কমে আক্রান্ত ছাড়াল ৮ হাজার প্রধানমন্ত্রী ৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা দিলেন কওমি মাদরাসাগুলোকে করোনার চিকিৎসায় আশার আলো দেখাচ্ছে পরীক্ষামূলক ওষুধ রেমডেসিভির। তোমাকেই_মনে-পড়ে পর্ব_৩ Covid- 19 ( করোনাভাইরাস) কাতারের আজকের আপডেট। প্রবাসে যুবকের মৃত্যু কিন্ডারগার্টেন বিপদগ্রস্ত এইমাত্র কানাইঘাট উপজেলায় একজন আহত কিশোরগঞ্জের পাগলামসজিদে এককোটিপঞ্চাশ লক্ষ টাকা তোমাকেই_মনে-পড়ে অভিনেতা ইরফান খান আর নেই করোনা সতর্কতা: বাইরে থেকে ঘরে ফেরার আগে করণীয় মাস্ক না পরেই হাসপাতাল পরিদর্শনে মাইক পেন্স করোনাযুদ্ধে জয়ের পথে অস্ট্রেলিয়া। করোনায় আক্রান্ত ৭২৭ স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসক-নার্সসহ ঢাকায় সর্বোচ্চ ৫৪৮ জন কানাইঘাটে প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণ। Covid-19 (করোনাভাইরাস) ৭ মে পর্যন্ত আকাশপথে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা বাড়লো করোনার এই পরিস্থিতিতে এনআইডি বিষয়ে যে ৬ সেবা মিলবে ফিরে আসার আশঙ্কা কয়েক লাখ শ্রমিক , কী ভাবছে সরকার বিদায় নিচ্ছে করোনা জুলাই মাসেই? ধান কেটে ঘরে তুলুন দ্রুত আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আমফান’, কাতারে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যেই বাংলাদেশ দ্বিতীয় অবস্থানে করোনায় আক্রান্ত ২১৮ পুলিশ আমেরিকান মনোবিজ্ঞানী লিসা শানকিন ইসলাম গ্রহণ করলেন এ কেমন ভালবাসা? প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ N-95 মাস্ক আসল কি না খতিয়ে দেখার জন্য চা-শ্রমিকের দৃশ্য ঘূর্ণিঝর নিজ হস্তের ব্যাট বিক্রি করছেন মুশফিক ভাঙচুর-লুটপাট সাংবাদিকের বাড়িতে ঢুকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর: মহা সংকটে আমরা চাল চোরদের বিচার দাবি, সাংবাদিকদের নামে মামলা প্রত্যাহার করোনায় আক্রান্ত প্রশাসন ক্যাডারের ৬ কর্মকর্তা আরও ১২ জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত হোয়াটসঅ্যাপ আনছে নতুন ফিচার করোনায় আক্রান্ত প্রথম রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন যেতে হবে না হাসপাতালে আক্রান্ত হলেই উহানের আলোচিত সেই ল্যাবের পরিচালক মুখ খুললেন আর নেই অভিনেত্রী ফেরদৌসী আহমেদ লিনা করোনা: এক সপ্তাহে দ্বিগুণ পেঁয়াজ-আদার দাম নিজ নিজ ঘরে পড়তে হবে ঈদের নামাজ করোনায় আক্রান্ত মাশরাফির নানা বিভ্রান্তি ছড়াবেন না মানুষের মধ্যে : ফখরুলকে কাদের করোনায় আক্রান্ত সংসদ সদস্য কেরামত আলীর স্ত্রী মাহফুজ আহমেদ নিজ গ্রামবাসীর পাশে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এক বছর পেছানো হোক করোনায় একা নয় অনেককে সাথে নিয়ে ইচ্ছা পোষণ করে মৃত্যু্ আল্লাহর রহমতে খাবারের অভাব নেই, অভাব হবেও না : প্রধানমন্ত্রী Facebook ভুয়ো তথ্য ঠেকাতে কড়া পদক্ষেপের পথে লঙ্ঘিতে হবে দুস্তর পারাবার বদরগঞ্জে আরও একজন শনাক্ত করোনায় ১১ দেশে ২২৭ বাংলাদেশির মৃত্যু সারা দেশকে করোনা সংক্রমণে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর পানির মাধ্যমেও ছড়ায় করোনা ভাইরাস! পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে সিলেটের টেলিভিশন সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে কিছু কুলাঙ্গার পুলিশের জন্য ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে -পররাষ্ট্রমন্ত্রী শারদীয় দুর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানালেন দেবাংশু দাস মিঠু এসআই আকবরের ছোট ভাই আরিফ ভূঁইয়া আটক গোলাপগঞ্জের লক্ষীপাশা ইউনিয়নের উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী তুহিন বিজয়ী ৫৪টি উপজেলায় ব্যাংকের সব শাখা বন্ধ মঙ্গলবার কর্মসংস্থান নেই : দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে যাচ্ছে অনেক মানুষ আজ হৈমন্তী রানী দাসের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী সিলেটে রায়হান হত্যার ৮দিন অতিবাহিত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ! পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ৩০ অক্টোবর
add

বঙ্গবন্ধুর লেখা ছয় দফা Ptvnews24.com

  • রবিবার, ৭ জুন, ২০২০
  • ৯৬ বার পড়া হয়েছে

পি টিভি নিউজ ডেস্কঃ ছয় দফা আন্দোলন বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সুচনাবিন্দু। নিজেদের অধিকার আদায়ের আদায়ের সংগ্রাম বাঙ্গালি জাতি অনেক আগে থেকেই করে আসছে। কিন্তু নিজেদের আত্মপরিচয়ের চাহিদা, এর জন্য সংগ্রামের প্রেরণা, নিজেদের স্বপ্নের বাস্তবিক কাঠামো বাঙ্গালি জাতি ছয় দফা থেকেই পেয়েছে। এই ছয় দফার প্ছরভাব্য়র ভীত হয়েই আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় ফাঁসানো হয়েছিলো তাঁকে। ‘৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান সংঘটিত হয়েছিলো এই ছয় দফার কারনেই। ছয় দফা আন্দোলন শেখ মুজিবকে করেছে ‘বঙ্গবন্ধু’। এই কর্মসূচিকে ঘিরে গবেষণা করেছেন অনেকেই। পক্ষে-বিপক্ষে অনেক আলোচনা-সমালোচনা ছিল তখন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ছয় দফা কর্মসূচির প্রণেতা এবং আমাদের স্বাধিকার আন্দোলনের রুপকার, তাঁর কাছে ছয় দফা কি ছিল? কেন তিনি দলের ভেতরে-বাইরে এত সমালোচনা স্বত্ত্বেও ছয় দফাকে আঁকড়ে ছিলেন? কেন তাঁর কাছে মনে হয়েছিলো যে ছয় দফাই আমাদের বাঁচাবে? কেন তিনি এই কর্মসুচিকে বলেছিলেন “আমাদের বাঁচার দাবি”? নিচের লেখাগুলো বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী মুলক গ্রন্থ ‘কারাগারের রোজনামচা’ থেকে উদ্ধৃত। বইটির বিভিন্ন স্থানে ছয় দফা সম্পর্কিত লেখা পাওয়া যায়। সেগুলোই সংকলন করে এখানে তুলে ধরা হয়েছেঃ

২রা জুন ১৯৬৬ঃ

সকালে ঘুম থেকে উঠেই শুনলাম রাত্রে কয়েকজন গ্রেফতার হয়ে এসেছে। কয়েদিরা, সিপাহিরা আলোচনা করছে। ব্যস্ত হয়ে পড়লাম। বুঝতে বাকি রইলনা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং কর্মীদের নিয়ে এসেছে, ৭ই জুনের হরতালকে বানচাল করার জন্য। অসীম ক্ষমতার মালিক সরকার সবই পারেন। এত জনপ্রিয় সরকার তাহলে গ্রেপ্তার শুরু করেছেন কেন। পোস্টার লাগালে পোস্টার ছিড়ে ফেলা, মাইক্রোফোনের অনুমতি না দেওয়া, অনেক অত্যাচারই শুরু করেছে। জেলের এক কোণে একাকী থাকি, কিভাবে খবর জানব?

শুনলাম ১২/১৩ জন রাতে এসেছে। নাম কেউ বলতে পারে না বা বলতে পারলেও বলবে না। খবরের কাগজে কারও কারও নাম উঠবে। একই জেলে থেকেও কারও সাথে কারও দেখা হওয়া তো দূরের কথা, খবর পাওয়ার সাধ্য নাই নতুন লোকের পক্ষে। তবে আমি পুরানা লোক- বহুবার এই জেলে অতিথি হয়েছি। এই জেলের সকলেই আমাকে জানে। নিশ্চয়ই বের করে নেব।

আবদুল মোমিন এডভোকেট, প্রচার সম্পাদক আওয়ামী লীগ, ওবায়দুর রহমান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক, হাফেজ মুছা, ঢাকা শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি, মোস্তফা সরোয়ার, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন চৌধুরী, সহ-সভাপতি ঢাকা শহর আওয়ামী লীগ, রাশেদ মোশাররফ, সহ সম্পাদক, ঢাকা শহর আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগ কর্মী হারুনুর রশিদ ও জাকির হোসেন | দশ সেলে এদের রাখা হয়েছে । এত খারাপ সেল ঢাকা জেলে আর নাই। এখানে আমাদের প্রথম রাখা হয়েছিল । আমরা প্রতিবাদ করে ওখান থেকে চলে আসি । বাতাস ঐ সেলে ভুল করেও ঢোকে না। মন খুব খারাপ হয়ে গেল। ডেপুটি জেলার সাহেবকে বললাম । শুনলাম মোমিন সাহেব ডিআইজি সাহেবকে বললেন।

এই নেতৃবৃন্দ গ্রেপ্তার হওয়ার জন্য আন্দোলন যে পিছাইয়া যাবে না, সে সম্বন্ধে আমার সন্দেহ নাই। বুঝলাম সকলকেই আনবে জেলে। ধরতে পারলে কাউকে ছাড়বে না । মীজান ফিরে এসেছে এই একটা ভরসা। অনেকে আবার ভয়েতে ঘরে বসে যাবে, সে আমার জানা আছে। হাফেজ মুছা সাহেব বুড়া মানুষ কষ্ট পাবেন হয়তো, পূর্বে কোনো দিন জেলে আসেন নাই। তবে শক্ত মানুষ। চৌধুরী সাহেব বেচারা খুবই নরম। আর সকলেই শক্ত আছে। আন্দোলনের ক্ষতি হবে এই ভাবনা আমার মনটাকে একটু চঞ্চল করেছে।

কোনোমতে খেয়ে বসে রইলাম, খবরের কাগজ কখন আসবে? কাগজ এল… ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থেকে খবর এসেছে পুলিশ বাহিনী নিজেরাই দিনের বেলায় ৭ই জুনের পোস্টার ছিড়ে ফেলছে। ঢাকা ও অন্যান্য জায়গায় তো করছেই। এই তো স্বাধীনতা আমরা ভোগ করছি।

এক অভিনব খবর কাগজে দেখলাম, মর্নিং নিউজ কাগজে ন্যাপ নেতা মিঃ মশিউর রহমান ফটো দিয়ে একটা সংবাদ পরিবেশন করেছে। ইত্তেফাক ও অন্যান্য কাগজেও খবরটি উঠেছে। তিনি ছয় দফার দাবি সম্বন্ধে তার মতামত দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘ছয় দফা কর্মসূচী কার্যকর হইলে, পরিশেষে উহা সমস্ত দেশে এক বিচ্ছিন্নতাবাদী মনোভাব জাগাইয়া তুলিবে। এমনকি তিনি যদি প্রেসিডেন্ট হতেন তাহা হলে ছয় দফা বাস্তবায়িত হতে দিতেন না।’ এদের এই ধরনের কাজেই তথাকথিত প্রগতিবাদীরা ধরা পড়ে গেছে জনগণের কাছে। জনগণ জানে এই দলটির কিছু সংখ্যক নেতা কিভাবে কৌশলে আইয়ুব সরকারের অপকর্মকে সমর্থন করছে। আবার নিজেদের বিরোধী দল হিসেবে দাবি করে এরা জনগণকে ধোকা দিতে চেষ্টা করছে। এরা নিজদেরকে চীনপন্থী বলে থাকেন। একজন এক দেশের নাগরিক কেমন করে অন্য দেশপন্থী, প্রগতিবাদী হয়? আবার জনগণের স্বায়ত্তশাসনের দাবিকে বিচ্ছিন্নতাবাদী বলে চিৎকার করে । ব্যক্তিগত ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করতে চাই না, তবে যদি তদন্ত করা যায় তবে দেখা যাবে, মাসের মধ্যে কতবার এরা পিন্ডি করাচী যাওয়া-আসা করে, আর পারমিটের ব্যবসা বেনামীভাবে করে থাকে। এদের জাতই হলো সুবিধাবাদী। এর পূর্বে মওলানা ভাসানী সাহেবও ছয় দফার বিরুদ্ধে বলেছেন, কারণ দুই পাকিস্তান নাকি আলাদা হয়ে যাবে।।

মওলানা সাহেবকে আমি জানি, কারণ তিনিই আমার কাছে অনেকবার অনেক প্রস্তাব করেছেন । এমন কি ন্যাপ দলে যোগদান করেও। সেসব আমি বলতে চাই না। তবে ‘সংবাদে’র সম্পাদক জহুর হোসেন চৌধুরী সাহেব জানেন। এসব কথা বলতে জহুর ভাই তাকে নিষেধও করেছিলেন। মওলানা সাহেব পশ্চিম পাকিস্তানে যেয়ে এক কথা বলেন, আর পূর্ব বাংলায় এসে অন্য কথা বলে। যে লোকের যে মতবাদ সেই লোকের কাছে সেই ভাবেই কথা বলেন। আমার চেয়ে কেউ তাকে বেশি জানে না। তবে রাজনীতি করতে হলে নীতি থাকতে হয়। সত্য কথা বলার সাহস থাকতে হয়। বুকে আর মুখে আলাদা না হওয়াই উচিত।

৪ঠা জুন ১৯৬৬ঃ

ইত্তেফাক দেখে মনে হলো ৭ই জুনের হরতল সম্বন্ধে কোন সংবাদ ছাপতে পাড়বে না বলে সরকার হুকুম দিয়েছে। কিছুদিন পূর্বে আরও হকুম দিয়েছে এক অংশ অন্য অংশকে শোষণ করছে এটা লিখতে পারবা না। ছাত্রদের কোন নিউজ ছাপতে পারবা না। আবার এই যে হুকুম দিলাম সে খবরও ছাপাতে পারব না।’ ইত্তেফাকের উপর এই হুকুম দিয়েছিল। এটাই হল সংবাদপত্রের স্বাধীনতা।

আওয়ামী লীগ কর্মীরা আর ছাত্র তরুন কর্মীরা কাজ করে যেতেছে। বেপরোয়া গ্রেপ্তারের পরও ভেঙে পড়ে নাই দেখে ভালই লাগছে। রাজনৈতিক কর্মীদের জেল খাটতে কষ্ট হয় না যদি বাইরে আন্দোলন থাকে।

৫ই জুন ১৯৬৬ঃ

আওয়ামী লীগ কর্মীদের গ্রেপ্তার করে চলেছে। আরও আটজন কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে বিভিন্ন জায়গার। দমননীতি সমানে চালাইয়া যেতেছে সরকার। নির্যাতনের মধ্য দিয়ে গণদাবি দাবাইয়া দেওয়া যায় না। গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে, গণতান্ত্রিক পথেই মোকাবিলা করা উচিত। যে পথ অবলম্বন করেছে তাতে ফলাফল খুব শুভ হবে বলে মনে হয় না। আওয়ামী লীগ কর্মীরা যথেষ্ট নির্যাতন ভোগ করেছে। ছয় দফা দাবি যখন তারা দেশের কাছে পেশ করেছে তখনই প্রস্তুত হয়ে গিয়াছে যে তাদের দুঃখ কষ্ট ভোগ করতে হবে। এটা ক্ষমতা দখলের সংগ্রাম নয়, জনগণকে শোষণের হাত থেকে বাঁচাবার জন্য সংগ্রাম। যথেষ্ট নির্যাতনের পরেও আওয়ামী লীগ কর্মীরা দেশের আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে নাই। তবুও পোস্টারগুলি পুলিশ দিয়ে তুলে ফেলান হতেছে। ছাপানো পোস্টার জোর করে নিয়ে যেতেছে সরকারি কর্মচারীদের দিয়ে।

এখন একমাত্র চিন্তা কর্মীরা নেতা ছাড়া আন্দোলন চালাইয়া যেতে সক্ষম হবে কিনা! আমার বিশ্বাস আছে আওয়ামী লীগের ও ছাত্রলীগের নিঃস্বার্থ কর্মীরা, তাদের সাথে আছে। কিছু সংখ্যক শ্রমিক নেতা-যারা সত্যই শ্রমিকদের জন্য আন্দোলন করে—তারাও নিশ্চয়ই সক্রিয় সমর্থন দেবে । এত গ্রেপ্তার করেও এদের দমাইয়া দিতে পারে নাই। ৭ই জুন হরতালের জন্য এরা পথসভা ও মিছিল বের করেই চলেছে । পোস্টার ছিড়ে দিলেও নতুন পোস্টার লাগাইতেছে, প্যামফ্লেট বাহির করছে। সত্যই এতটা আশা আমি করতে পারি নাই।

মাথার ভিতর শুধু ৭ই জুনের চিন্তা। কি হবে। তবে জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে। জনমত আমার জানা আছে।

৬ই জুন ১৯৬৬ঃ

আগামীকাল ধর্মঘট। পূর্ব বাংলার জনগণকে আমি জানি, হরতাল তারা করবে। রাজবন্দিদের মুক্তি তারা চাইবে। ছয়দফা সমর্থন করবে। তবে মোনায়েম খান সাহেব যেভাবে উস্কানি দিতেছেন তাতে গোলমাল বাধার চেষ্টা যে তিনি করছেন। এটা বুঝতে পারছি । জনসমর্থন যে তার সরকারের নাই তা তিনি বুঝেও, বোঝেন না।

ঘরে এসে বই পড়তে শুরু করে আবার মনটা চঞ্চল হয়ে যায়, আবার বাইরে যাই-কেবল একই চিন্তা! দুপুর বেলা খাওয়ার পূর্বেই কাগজগুলি এল।

ধরপাকড় চলছে সমানে। কর্মীদের গ্রেপ্তার করছে। যশোরে আওয়ামী লীগ অফিস তল্লাশি করেছে । ভূতপুর্ব মন্ত্রী আওয়ামী লীগ নেতা জনাব মশিয়ুর রহমান প্রতিবাদ করেছেন। জনাব নূরুল আমীন সাহেব আওয়ামী লীগ কর্মী ও নেতাদের গ্রেপ্তারের তীব্র সমালোচনা করেছেন এবং মুক্তি দাবি করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘শত্রু নাশের জন্য রচিত আইনে দেশবরেণ্য নেতৃবৃন্দের গ্রেপ্তার দেশবাসীকে স্তম্ভিত করিয়াছে।’ ঢাকার মৌলিক গণতন্ত্রী সদস্যরা এক যুক্ত বিবৃতিতে আমাকে সহ সকল রাজবন্দীর মুক্তি দাবি করিছে, আর ৬ দফা দাবিকে সমর্থন করিয়াছে এবং জনগনকে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহবান জানিয়েছেন।


৯ জন আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি ও ধরপাকড়ের তীব্র প্রতিবাদ করিয়াছে এবং তাদের মুক্তি দাবি করিয়াছেন। আওয়ামী লীগ, শ্রমিক, ছাত্র ও যুব কর্মীরা হরতালকে সমর্থন করে পথ সভা করে চলেছেন। মশাল শোভাযাত্রাও একটি বের করেছে। শত অত্যাচার ও নির্যাতনেও কর্মারা ভেঙে পড়ে নাই। আন্দোলন চালাইয়া চলেছে। নিশ্চয়ই আদায় হবে জনগণের দাবি।

গভর্ণর নারায়ণগঞ্জ জনসভায় আবার হুমকি ছেড়েছেন। তিনি বলেছেন, আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গের চেষ্টা করলে কঠোর হস্তে দমন করবেন। আইন শৃখলা আওয়ামী লীগ কোনোদিন ভাঙতে চায় নাই। তারা বিশ্বাস করে না ঐ রাজনীতিতে। কিন্তু যিনি আইন শৃঙ্খলার মালিক হয়ে আইন শৃখলা ভাঙতে উস্কানি দিতেছেন তার বিচার কে করবে? যার সরকার বেআইনি এবং অন্যায়ভাবে কর্মীদের হয়রানি করছেন, গ্রেপ্তার করছেন তার বিচার কবে হবে? মোনায়েম খান সাহেবের জানা উচিত ১৯৪৯ সাল থেকে আওয়ামী লীগ কর্মীরা অনেকবার জেলে গেছেন, মিথ্যা মামলার আসামিও হয়েছেন। পূর্বের সরকার এবং মুখপাত্ররা এ রকম হুমকি অনেকবার দিয়েছেন। সরকার কর্মীদের বন্দি করেও অত্যাচার করেছে, ২৪ ঘণ্টা তালা বন্ধ করে রেখেছে জেলের মধ্যে। নারায়ণগঞ্জে মোস্তফা সারওয়ার, শামসুল হক ভূতপূর্ব এম এ, হাফেজ মুছা সাহেব, আব্দুল মোমিন এডভোকেট, ওবায়দুর রহমান, শাহাবুদ্দিন চৌধুরীর মতো নেতৃবৃন্দকে ‘সি’ ক্লাস করে রাখা হয়েছে । কি করে এই সরকার সভ্য সরকার বলে দাবি করতে পারে আমি ভেবে পাই না!

আজাদ যেটুকু সংবাদ পরিবেশন করিতেছে তাহাতে ধন্যবাদ না দিয়ে পারা যায় না। আমি একা থাকি, আমার সাথে কাহাকেও মিশতে দেওয়া হয় না। একাকী সময় কাটানো যে কত কষ্টকর তাহা যাহারা ভুক্তভোগী নন বুঝতে পারবেন না। আমার নিজের উপর বিশ্বাস আছে, সহ্য করার শক্তি খোদা আমাকে দিয়েছেন । ভাবি শুধু আমার সহকর্মীদের কথা। এক এক জনকে আলাদা আলাদা জেলে নিয়ে কিভাবে রেখেছে? ত্যাগ বৃথা যাবে না, যায় নাই কোনদিন । নিজে ভোগ নাও করতে পারি, দেখে যেতে নাও পারি, তবে ভবিষ্যৎ বংশধররা আজাদী ভোগ করতে পারবে। কারাগারের পাষাণ প্রাচীর আমাকেও পাষাণ করে তুলেছে। এ দেশের লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি মা-বোনের দোয়া আছে আমাদের উপর। জয়ী আমরা হবই। ত্যাগের মাধ্যমেই আদর্শের জয় হয়।

৭ই জুন ১৯৬৬ঃ

সকালে ঘুম থেকে উঠলাম। কি হয় আজ? আবদুল মোনায়েম খান যেভাবে কথা বলছেন তাতে মনে হয় কিছু একটা ঘটবে আজ। কারাগারের দুর্ভেদ্য প্রাচীয় ভেদ করে খবর আসলো দোকান-পাট, গাড়ি, বাস, রিকশা সব বন্ধ। শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল চলছে। এই সংগ্রাম একলা আওয়ামী লীগই চালাইতেছে। আবার সংবাদ পাইলাম পুলিশ আনসার দিয়ে ঢাকা শহর ভরে দিয়েছে। আমার বিশ্বাস নিশ্চয়ই জনগণ বে-আইনী কিছুই করবে না। শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করার অধিকার প্রত্যেকটি গণতান্ত্রিক দেশের মানুষের রয়েছে। কিন্তু এরা শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করতে দিবে না।

আবার খবর এল টিয়ার গ্যাস ছেড়েছে। লাঠি চার্জ হতেছে সমস্ত ঢাকায়। আমি তো কিছুই বুঝতে পারি না। কয়েদিরা কয়েদিদের বলে । সিপাইরা সিপাইদের বলে। এই বলাবলির ভিতর থেকে কিছু খবর বের করে নিতে কষ্ট হয় না। তবে জেলের মধ্যে মাঝে মাঝে প্রবল গুজব রটে।

অনেক সময় এসব গুজব সত্যই হয়, আবার অনেক সময় দেখা যায় একদম মিথ্যা গুজব। কিছু লোক গ্রেপ্তার হয়ে জেল অফিসে এসেছে। তার মধ্যে ছোট ছোট বাচ্চাই বেশি। রাস্তা থেকে ধরে এনেছে। ১২ টার পরে খবর পাকাপাকি পাওয়া গেল যে হরতাল হয়েছে, জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে হরতাল পালন করেছে। তারা ছয়দফা সমর্থন করে আর মুক্তি চায়, বাঁচতে চায়, খেতে চায়, ব্যক্তি স্বাধীনতা চায় । শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি, কৃষকের বাঁচবার দাবি তারা চায়- এর প্রমাণ এই হরতালের মধ্যে হয়েই গেল ।

এ খবর শুনলেও আমার মনকে বুঝাতে পারছি না। একবার বাইরে একবার ভিতরে খুবই উদ্বিগ্ন হয়ে আছি। বন্দি আমি, জনগণের মঙ্গল কামনা ছাড়া আর কি করতে পারি। বিকালে আবার গুজব শুনলাম গুলি হয়েছে, কিছু লোক মারা গেছে। অনেক লোক জখম হয়েছে। মেডিকেল হাসপাতালে একজন মারা গেছে। একবার আমার মন বলে, হতেও পারে, আবার ভাবি সরকার কি এতো বোকামি করে? ১৪৪ ধারা দেওয়া হয় নাই। গুলি চলবে কেন? একটু পরেই খবর এল ঢাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। মিটিং হতে পারবে না। কিছু জায়গায় টিয়ার গ্যাস মারছে সে খবর পাওয়া গেল।
বিকালে আরও বহুলোক গ্রেপ্তার হয়ে এল। প্রত্যেককে সামারী কোর্ট করে সাজা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। কাহাকেও একমাস, কাহাকে দুই মাস। বেশির ভাগ লোকই রাস্তা থেকে ধরে এনেছে শুনলাম। অনেকে নাকি বলে রাস্তা দিয়া যাইতেছিলাম ধরে নিয়ে এল। আবার জেলও দিয়ে দিল । সমস্ত দিনটা পাগলের মতোই কাটলো আমার। তালা বন্ধ হওয়ার পূর্বে খবর পেলাম নারায়ণগঞ্জ, তেজগা, কার্জন হল ও পুরান ঢাকার কোথাও কোথাও গুলি হয়েছে, তাতে অনেক লোক মারা গেছে। বুঝতে পারি না সত্য কি মিথ্যা। কাউকে জিজ্ঞাসা করতে পারি না। সেপাইরা আলোচনা করে, তার থেকে কয়েদিরা শুনে আমাকে কিছু কিছু বলে।

তবে হরতাল যে সাফল্যজনকভাবে পালন করা হয়েছে সে কথা সকলেই বলছে। এমন হরতাল নাকি কোনোদিন হয় নাই, এমনকি ২৯ শে সেপ্টেম্বর । তবে আমার মনে হয় ২৯শে সেপ্টেম্বরের মতোই হয়েছে হরতাল ।

গুলি ও মৃত্যুর খবর পেয়ে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেছে। শুধু পাইপই টানছি যে এক টিন তামাক বাইরে আমি ছয়দিনে খাইতাম, সেই টিন এখন চারদিনে খেয়ে ফেলি। কি হবে? কি হতেছে? দেশকে এরা কোথায় নিয়ে যাবে, নানা ভাবনায় মনটা আমার অস্থির হয়ে রয়েছে। এমনিভাবে দিন শেষ হয়ে এল। মাঝে মাঝে মনে হয় আমরা জেলে আছি । তবুও কর্মরা, ছাত্ররা ও শ্রমিকরা যে আন্দোলন চালাইয়া যাইতেছে, তাদের জন্য ভালবাসা দেওয়া ছাড়া আমার দেবার কিছুই নাই।

দৈনিক আজাদ পত্রিকা সংবাদ পরিবেশন ভালই করেছে, আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আজ প্রদেশে হরতাল’। ‘হরতাল কে সাফল্যমন্ডিত করার জন্য আওয়ামী লীগের একক প্রচেষ্টা। প্রোগ্রামটাও দিয়েছে ভাল করে।

পাকিস্তান অবজারভার হেড লাইন করেছে হরতাল’ বলে। খবর মন্দ দেয় নাই। মিজানের বিবৃতিটি চমৎকার হয়েছে। হলে কি হবে, ‘চোরা নাহি শোনে ধর্মের কাহিনী।

৮ই জুন ১৯৬৬ঃ

ভোরে উঠে শুনলাম সমস্ত রাত ভর গ্রেপ্তার করে জেল ভরে দিয়েছে পুলিশ বাহিনী। সকালেও জেল অফিসে বহু লোক পড়ে রয়েছে। প্রায় তিনশত লোককে সকাল ৮টা পর্যন্ত জেলে আনা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ বৎসর বয়স থেকে ৫০ বছর বয়সের লোকও আছে। কিছু কিছু ছেলে মা মা করে কাঁদছে। এরা দুধের বাচ্চা, খেতেও পারে না নিজে। কেস টেবিলের সামনে এনে রাখা হয়েছে । সমস্ত দিন এদের কিছুই থাবার দেয় নাই। অনেকগুলি যুবক আহত অবস্থায় এসেছে। কারও পায়ে জখম, কারও কপাল কেটে গিয়াছে, কারও হাত ভাঙ্গা এদের চিকিৎসা করা বা ঔষধ দেওয়ার কোনো দরকার মনে করে নাই কর্তৃপক্ষ। গ্রেপ্তার করে রাখা হয়েছিল অন্য জায়গায়, সেখান থেকে সন্ধ্যার পর জেলে এনে জমা দেওয়া শুরু করে । দিনভরই লোক আনছিল অনেক। কিছু সংখ্যক স্কুলের ছাত্র আছে। জেল কর্তৃপক্ষের মধ্যে কেহ কেহ খুবই ভাল ব্যবহার করেছে। আবার কেহ কেহ খুবই খারাপ ব্যবহারও করেছে । বাধ্য হয়ে জেল কর্তপক্ষকে জানালাম, অত্যাচার বন্ধ করুন। তা না হলে ভীষণ গোলমাল হতে পারে। মোবাইল কোর্ট করে সরকার গ্রেফতারের পরে এদের সাজা দিয়ে দিয়েছে। কাহাকেও তিন মাস, আর কাহাকেও দুই মাস, এক মাস ও কিছু সংখ্যার ছেলেদের দিয়েছে। সাধারণ কয়েদি, যাদের মধ্যে অনেকেই মানুষ খুন করে অথবা ভাকাতি করে জেলে এসেছে তারাও দুঃখ করে বলে, এই দুধের বাচ্চাদের গ্রেপ্তার করে এনেছে! এরা রাত ভর কেঁদেছে। ভাল করে খেতে পারে নাই। এই সরকারের কাছ থেকে মানুষ। কেমন করে বিচার আশা করে?

জেল কর্তৃপক্ষ কোথায় এত লোকের জায়গা দিবে বুঝে পাই না। ছোট ছোট ছেলেদের আলাদা করে রাখতে হয়। এর জেলে আসার পরে খবর এল ভীষণ গুলিগোলা হয়েছে, অনেক লোক মারা গেছে তেজগাঁ ও নারায়ণগঞ্জে। সমস্ত ঢাকা শহরে টিয়ায় গ্যাস ছেড়েছে, লাঠিচার্জও করেছে। চুপ করে বসে নীরবে সমবেদনা জানান ছাড়া আমার কি করার আছে। আমার চরিত্রের মধ্যে ভাবাবেগ একটু বেশি। যদিও নিজকে সামলানোর মতো ক্ষমতাও আমার আছে। বন্দি অবস্থায় এই সমস্ত খবর পাওয়ার পরে মনের অবস্থা কি হয় ভুক্তভোগী ছাড়া বুঝতে পারবে না।

মেটের পীড়াপীড়িতে নাস্তা খেতে বসেছিলাম। খেতে পারি নাই। দুপুরে ভাত খেতে বসেছি একই অবস্থা। সঠিক খবর না পাওয়ার জন্যই মন আরও খারাপ। খবরের কাগজের জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়লাম। কাগজ আসতে খুব দেরি হতেছে, ২টার সময় কাগজ এল। আমি পূর্বে যা অনুমান করেছি তাই হলো । কোনো খবরই সরকার সংবাদপত্রে ছাপতে দেয় নাই।
ধর্মঘটের কোনো সংবাদই নাই। শুধু সরকারি প্রেস নোট। ইত্তেফাক, আজাদ, অবজারভার সকলেরই একই অবস্থা। একেই বলে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা! ইত্তেফাক মাত্র চার পৃষ্ঠা । কোন জেলার কোন সংবাদ নাই । প্রতিবাদ দিবস ও হরতাল যে পুরাপুরি পালিত হয়েছে বিভিন্ন জেলায় সে সম্বন্ধে আমার কোনো সন্দেহ রইল না।

খবরের কাগজ গুলো দেখে আমি শিহরিয়া উঠলাম । পত্রিকার নিজস্ব খবর ছাপতে দেয় নাই। তবে সরকারি প্রেসনোটেই স্বীকার করেছে পুলিশের গুলিতে দশজন মারা গিয়াছে। এটা তো ভয়াবহ খবর । সরকার যখন স্বীকার করেছে দশজন মারা গেছে, তখন কতগুণ বেশি হতে পারে ভাবতে আমার ভয় হলো! কত জন যখম হয়েছে সরকারি প্রেসনোটে তাহা নাই। সমস্ত দোষই যেন জনগণের । যেখানে উসকানি দিতেছে সরকারের প্রতিনিধিরা, আওয়ামী লীগ সেখানে পরিস্কার ভাষায় বলে দিয়েছে, শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ দিবস পালন করতে চাই । এবং সে অনুযায়ী তারা কর্মীদের নির্দেশও দিয়েছে । এখন জনগণকে দোষ দিয়ে লাভ নাই । যেখানে পুলিশ ছিল না সেখানে কোনো গন্ডগোল হয় নাই। চকবাজার ও অন্যান্য জায়গায় শান্তিপূর্ণভাবে ধর্মঘট হয়েছে। সে খবর পেয়েছি।

বেলা ১১টার সময় ১৪৪ ধারা জামি করে আর সাথে সাথে গুলি শুরু হয়। পূর্বে জারি করলেই তো কর্মী আর জনসাধারণ জানতে পারে। যখন আওয়ামী লীগ তার প্রোগ্রাম খবরের কাগজে বের করে দিল যাতে পরিষ্কার লেখা ছিল, ১টায় শোভাযাত্রা, বিকালে সভা শেষে আবার শোভাযাত্রা। তখন তো ১৪৪ ধারা জারি করে নাই। পরিষ্কারভাবে বোঝা যায় সরকারের দালালেরা ও কিছুসংখ্যক অতি উৎসাহী কর্মচারী কোনো এক উপর তলার নেতার কাছ থেকে পরামর্শ করে এই সর্বনাশ করেছে।

সরকার যদি মিথ্যা কথা বলে প্রেসনোট দেয়, তবে সে সরকারের উপর মানুষের বিশ্বাস থাকতে পারে না। জীবন ভরে একই কথা শুনিয়াছি আত্মরক্ষার জন্যই পুলিশ গুলি বর্ষণ করতে বাধ্য হয়। এ কথা কেউ বিশ্বাস করবে? যারা মারা গেল তাদের ছেলেমেয়ে, মা-বাবা তাদের কি হবে? কত আশা করে তারা বসে আছে, কবে বাড়ি আসবে তাদের বাবা। কবে আসছে তাদের ছেলে। রোজগারের টাকা আসবে মাসের প্রথম দিকে। এরা জেলে বন্দি, সহসা আর ফিরে যাবে না, টাকাও আর পৌছবে না সংসারে। একথা ভেবে ভীষণভাবে ভেঙে পড়েছি আমি । কিছুতেই মনকে শান্তনা দিতে পারছি না। কেন মানুষ নিজের স্বার্থের জন্য পরের জীবন নিয়ে থাকে?

তবে এদের ত্যাগ বৃথা যাবে না। এই দেশের মানুষ তার ন্যায্য অধিকার আদায় করবার জন্য যখন জীবন দিতে শিখেছে তখন জয় হবেই, কেবলমাত্র সময় সাপেক্ষ। শ্রমিকরা কারখানা থেকে বেরিয়ে এসেছে। কৃষকরা কাজ বন্ধ করেছে। ব্যবসায়ীরা দোকান পাট বন্ধ করে দিয়েছে। ছাত্ররা স্কুল কলেজ ছেড়েছে। এতবড় প্রতিবাদ আর কোনোদিন কি পাকিস্তানে হয়েছে?

ছয় দফা যে পূর্ব বাংলার জনগণের প্রাণের দাবি-পশ্চিমা উপনিবেশবাদী ও সাম্রাজ্যবাদের দালাল পশ্চিম পাকিস্তানের শোষকশ্রেণী যে আর পূর্ব বাংলার নির্যাতিত গরীব জনসাধারণকে শোষণ বেশি দিন করতে পারবেনা, সে কথা আমি এবার জেলে এসেই বুঝতে পেরেছি। বিশেষ করে ৭ই জুনের যে প্রতিবাদে বাংলার গ্রামে গঞ্জে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ফেটে পড়েছে, কোনো শাসকের চক্ষু রাঙানি তাদের দমাতে পারবে না। পাকিস্তানের মঙ্গলের জন্য শাসকশ্রেণীর ছয়দফা মেনে নিয়ে শাসনতন্ত্র তৈয়ার করা উচিত।

যে রক্ত আজ আমার দেশের ভাইদের বুক থেকে বেরিয়ে ঢাকার পিচঢালা কাল রাস্তা লাল করল, সে রক্ত বৃথা যেতে পারে না। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার জন্য যেভাবে এ দেশে ছাত্র-জনসাধারণ জীবন দিয়েছিল তারই বিনিময়ে বাংলা আজ পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা। যারা হাসতে হাসতে জীবন দিল, আহত হলো, গ্রেপ্তার হলো, নির্যাতন সহ্য করল তাদের প্রতি এবং তাদের সন্তান-সম্পদের প্রতি নীরব প্রাণের সহানুভূতি ছাড়া জেলবন্দি আমি আর কি দিতে পারি। আল্লাহর কাছে এই কারাগারে বসে তাদের আত্মার শান্তির জন্য হাত তুলে মোনাজাত করলাম। আর মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলাম, এদের মৃত্যু বৃথা যেতে দেব না, সংগ্রাম চালিয়ে যাবো। যা কপালে আছে তাই হবে। জনগণ ত্যাগের দাম দেয়। ত্যাগের মাধ্যমেই জনগণের দাবি আদায় করতে হবে।

সমস্ত দিন পাগলের মতোই ঘরে বাইরে করতে লাগলাম । যদি কেহ বন্দি পশুপক্ষী দেখে থাকেন তারা অনুভব করতে পারে । শত শত লোককে গ্রেপ্তার করে আনছে। তাদের দুরবস্থা চিন্তা করতে ভয় হয়। রাস্তায় যাকে পেয়েছে তাকেই গ্রেপ্তার করে নিয়ে এসেছে। খালি গা-কাপড় নাই, একদিন একরাত পর্যন্ত থানায় বা অন্য কোথাও আটকাইয়া রেখেছিল । খাবারও দেয় নাই। গোসল নাই। সাজা দিয়ে নিয়ে এসেছে। এদের কিছু লোককে কয়েদির কাপড় পরাইয়া দিয়েছে। আমি যেখানে ছিলাম তার পাশেই পুরান বিশ সেলে রাতে ৮২ জন ছেলেকে নিয়ে এসেছে, বয়স ১৫ বৎসরের বেশি হবে না কারও। অনেকের মাথায় আঘাত। অনেকের পায়ে আঘাত, অনেকে হাঁটতে পারে না । হাকিম বাহাদুর বোধ হয় কারও কথা শোনেন নাই, জেল দিয়ে চলেছেন। রাতে জানালা দিয়ে দেখলাম এই ছেলেগুলিকে নিয়ে এসেছে । দরজা বন্ধ । জানালা দিয়ে চিৎকার দিয়ে বললাম, “জমাদার সাহেব। এদের খাবার বন্দোবস্তু করে দিবেন। বোধ হয় দুই দিন না খাওয়া।” মানুষ যখন অমানুষ হয় তখন হিংস্র জন্তুর চেয়েও হিংস্র হয়ে থাকে। রাত্রে আমি ঘুমাতে পারলাম না। দুই একজন জমিদার ও সিপাই এদের উপর অত্যাচার করছে । আর সবাই এদের আরাম দেবার চেষ্টা করেছে। কয়েদি ছোট ছোট ছেলেদের খুব আদর করে থাকে। নিজে না খাওয়াইয়া অনেকে খাওয়ায় থাকে। অনেকে নিজের গামছা দিয়েছে । যারা এদের উপর অত্যাচার করেছে। তাদের কথা আমার মনে রইলো । নাম আমি দেখব না।

রাত কেটে গেল । একটু ঘুম আসে, আবার ঘুম ভেঙে যায় ।

৯জুন ১৯৬৬ঃ

অনেক রিকশাওয়ালাকে এনেছে, বোধ হয় বাড়িতে তাদের ছেলে মেয়ে না খেয়েই আছে। দুই মাসের সাজা দিয়েছে অনেকে। দুপুর হয়ে গেল এই ভাবে। কাগজ এল, দেখলাম তথাকথিত জাতীয় পরিষদ ও পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ থেকে বিরোধী দল ওয়াক আউট করেছে প্রতিবাদে। কারণ মুলতবি প্রস্তাব স্পিকার সাহেব উঠাতে দেন নাই । একেই বলে আইন সভা। আর একেই বলে আইন সভার ক্ষমতা! চমৎকার ফার্স। ডিবেটিং ক্লাব বললেও চলে। তাহাও সব ক্ষেত্রে বলা চলে না। আমাদের দেশে একটা কথা আছে, যেই না মাথার চুল তার আবার লাল ফিতা।

সরকার স্বীকার করেছে আরও একজন হাসপাতালে মারা গিয়াছে। এই নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু হলো। যারা আহত হয়েছে তাদের কোনো সংবাদ নাই আজ পর্যন্ত। প্রশ্ন জাগে, ‘১১ জন মারা গেছে না অনেক বেশি মারা গেছে?

১২ই জুন ১৯৬৬ঃ

দেখেই খুশি হলাম যে আমি ও আমার সহকর্মীরা অনেকেই জেলে আটক থাকা অবস্থায়ও আওয়ামী লীগ নেতা ও কর্মীরা শান্তিপূর্ণ গণআন্দোলন চালাইয়া যাওয়ার সঙ্কল্প করিয়াছে। রক্ত এরা বৃথা যেতে দিবে না। সৈয়দ নজরুল ইসলাম এক্টিং সভাপতি, পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের। তার সভাপতিত্বে ১১ ঘন্টা ওয়ার্কিং কমিটির সভা হয়েছে। মিজানুর রহমান চৌধুরী জাতীয় পরিষদে যোগদান করতে পিন্ডি চলে গেছে। ১৭ই, ১৮ই, ১৯শে জুন জুলুম প্রতিরোধ দিবস উদযাপন করার আহ্বান জানাইয়াছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ ওয়ার্কিং কমিটি ১৬ আগস্ট এর পূর্বে সমস্ত গণবিরোধী ব্যবস্থার অবসান দাবি করিয়াছে। তা না করিলে ১৬ই আগস্ট থেকে জাতীয় পর্যায়ে গণআন্দোলন শুরু করা হবে। মনে মনে ভাবলাম আর কেউ আন্দোলন নষ্ট করতে পারবে না। দাবি আদায় হবেই ।

৬ দফার বাস্তবায়ন সংগ্রাম আওয়ামী লীগ অব্যাহত রাখবে তাও ঘোষণা করেছে। এখন আর আমার জেল খাটতে আপত্তি নাই, কারণ আন্দোলন চলবে। ভাবতে লাগলাম কর্মীদের টাকার অভাব হবে। পার্টি ফান্ডে টাকা নাই। আমিও বন্দোবস্ত করে দিয়ে আসতে পারি নাই। মাসে যে টাকা আদায় হয় তাতে অফিসের খরচ চলে যেতে পারে। তবে আমার বিশ্বাস আছে, অর্থের জন্য কাজ বন্ধ হয়ে থাকে না। জনসমর্থন যখন আওয়ামী লীগের আছে, জনগণের প্রাণও আছে। আমি দেখেছি এক টাকা থেকে হাজার টাকা অফিসে এসে দিয়ে গিয়াছে, যাদের কোনো দিন আমি দেখি নাই। বোধ হয় অনেককে দেখবোও না। ভরসা আমার আছে, জনগণের সমর্থন এবং ভালবাসা দুইই আছে আমাদের জন্য । তাই আন্দোলন ও পার্টির কাজ চলবে।

১৪ই জুন ১৯৬৬ঃ

আজ থেকে হাইকোর্টে আমার হেবিয়াস কর্পাস মামলার শুনানি হবে। কি হবে জানি না । অন্যায়ভাবে আমাকে গ্রেপ্তার করেছে, ডিপিআরএ গ্রেপ্তার চলেছে। ঘাটাইল আওয়ামী লীগ অর্গানাইজিং সেক্রেটারি মোহাম্মদ আলি মোক্তারকে গ্রেফতার করে ময়মনসিংহ জেলে পাঠিয়েছে

Rawle Knox (Daily Telegraph, June 4, S) East Pakistan’s Case এই নামে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন। তার ব্যক্তিগত মতামত। কাগজ যে কোন মতামত দিতে পারে তাতে আমার কিছুই বলা উচিত না। তবে পূর্ব পাকিস্তানের উপর জুলুমের খবর আজ আর शগে নাই ৬ দফা দাবি পেশ করার সাথে সাথে দুনিয়া জানতে পেরেছে বাঙালিদের আঘাত কোথায় ?

পাকিস্তানের মঙ্গলের জন্য আমারও মনে হয় ৬ দফা দাবি মেনে নেওয়া উচিত -শাসকগোষ্ঠীর বিশেষ করে আইয়ুব খান ও তার অনুসারীদের। তা না হলে পরিণতি ভয়াবহ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। বাঙালির একটি গোঁ আছে, যে জিনিস একবার বুঝতে পারে তার জন্য হাসিমুখে মৃত্যুবরণও করতে পারে। পূর্ব বাংলার বাঙালি এটা বুঝতে পেরেছে যে এদের শোষণ করা হতেছে চারদিক দিয়ে। শুধু রাজনৈতিক দিক দিয়েই নয়, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে।

আমি বিকালে সেলের বাইরে বসে আছি। কয়েকজন ছোট ছোট বালক জামিন পেয়ে বাইরে যেতেছে । খুব তাড়াতাড়ি হাঁটছে, মনে হয় যেতে পারলেই বাচে; থাকতে আর চায় না, এই পাষাণ-কারার ভিতরে। আমার কাছে এসে থেমে গেল । বলল, আমরা চললাম স্যার, আপনাকে বাইরে নেওয়ার জন্য আবার আন্দোলন করব।”

আমি বললাম, “যাও, সকলকে আমার সালাম দিও। আমার জন্য চিন্তা করিও না

ওদের দিকে আমি চেয়ে রইলাম ওদের কথা শুনে আনন্দে আমার বুকটি ভরে পেল । মনে হলো এটা তো আমার কারাগার নয়, শান্তির নীড়। এই দুধের বাচ্চাদের কথা শুনে কিছু সময়ের জন্য আমার দুঃখ ভুলে গেলাম । শক্তি পেলাম মনে। মনে হলো পারব। বহুদিন জেল খাটতে পারব । এরাও যখন এগিয়ে এসেছে দেশের মুক্তির আন্দোলনে তখন কে আর রুখতে পারে?

১৫ই জুন ১৯৬৬ঃ

ইংল্যান্ড থেকে আমাকে এফ তারবার্তা পাঠাইয়াছে ‘প্রবাসী বাঙ্গালীরা সমগ্র ব্রিটেনে শহীদ দিবস পালন করবে ১৭ ও ১৮ জুন।’ ব্রিটেন পাকিস্তানিদের প্রতিষ্ঠান প্রগতি ফ্রন্টের জেনারেল সেক্রেটারি এস এম হোসেন বৃটেনের সকল পাকিস্তানি নাগরিক ও পাকিস্তানি সংস্থাসমূহের প্রতি সাফল্যজনকভাবে শহীদ দিবস উদযাপনের স্বায়া অত্যাচারী জালেমশাহীর পাশবিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জ্ঞাপনের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের অত্যাচার, নির্যাতন, শোষণ, দুর্নীতি, অবিচার ও গণতান্ত্রিক কার্যকলাপের অবসানের জন্য আমাদের সংঘবদ্ধভাবে আওয়াজ তুলিতে হইবে।

এই সংবাদ দৈনিক আজাদ কাগজে ৭ই জুলাই ৩১ জ্যৈষ্ঠ তারিখে বাহির হয়েছে।

বৃটেনস্থ পাকিস্তানিদের পক্ষ হইতে জনাব হোসেন ও পাকিস্তান সমিতির প্রেসিডেন্ট জনাব আফরোজ বখত দেশ ও জনগণের জন্য সাহসিকতাপূর্ণ সংগ্রাম পরিচালনা ও দুঃখ ভোগের জন্য পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি অভিনন্দন জানাইয়া এক তারবার্তা প্রেরণ করিয়াছেন।

তারবার্তায় তাহারা বলেন, “প্রাদেশিক স্বায়ত্তশাসন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য আপনি যে সংগ্রাম চালাইয়া যাইতেছেন তাহাতে আমাদের সমর্থন রহিয়াছে। এই আন্দোলনকে নৈতিক, আর্থিক ও সামাজিক প্রভৃতি সর্বপ্রকার সাহায্য দানের জন্য আমরা প্রস্তুত রহিয়াছি। আপনি নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন যে আমাদের প্রাণদানকারী ভ্রাতাদের রক্তপাত ব্যর্থ যাইবে না। আমরা তাহাদের জন্য ও একই উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য কাজ করিয়া যাইতেছি—জনসাধারণের প্রতি ইহাই আমাদের বাণী।

জাতীয় পরিষদের ভিতর ও বাহিরে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম পরিচালনার উদ্দেশ্যে তারবার্তা জনাব নুরুল আমীনের প্রতিও অভিনন্দন জ্ঞাপন করা হয়।

তারবার্তায় পূর্ব পাকিস্তানের সাম্প্রতিক রক্তপাতের তীব্র নিন্দা করা হয় এবং বলা হয় যে ইহার ফলে পাকিস্তানের ইতিহাসে সর্বাধিক কলঙ্কময় অধ্যায়ের সৃষ্টি হইল ।

১৮ই জুন ১৯৬৬ঃ

আওয়ামী লীগের ডাকে জনগণ জুলুম প্রতিরোধ দিবস পালন করছে খবর পেলাম, আর সরকার অত্যাচারের স্টিম রোলার চালাইয়া যেতেছে। দেখা যাক কি হয়।

বিকালটা ভালই ছিল। বৃষ্টি হয় নাই। হাসপাতালে আহত কর্মীরা দরজার কাছে দাঁড়াইয়া আছে। নারায়ণগঞ্জের খাজা মহিউদ্দিন ও অন্যান্য কর্মীরা এবং সাহাবুদ্দিন চৌধুরী সাহেবও হাসপাতালে আছেন। তিনি নেমে এসেছেন দরজার কাছে । আমি একটু এগিয়ে যেয়ে ওদের বললাম, চিন্তা করিও না। কোনো ত্যাগই বৃথা যায় না। দেখ না আমাকে একলা রেখেছে। সিপাই সাহেবের মুখ শুকাইয়া গেছে, কারণ কথা বলা নিষেধ, চাকরি যাবে। আমি এদের ক্ষতি করতে চাই না, তাই চলে এলাম আমার জায়গায় । শুধু ওদের দূর থেকে আমার অন্তরের স্নেহ ও ভালবাসা জানালাম। জানি না আমার কথা ওরা শুনেছিল কিনা, কারণ দূর তো আর কম না!

২৫ জুন ১৯৬৬ঃ

ন্যাপের কোনো কোনো নেতা ৬ দফা গোপনে গোপনে সমর্থন করলেও লজ্জায় বলেন না, আর কেউ কেউ এর বিরুদ্ধাচরণ করেন। দিন আসছে ৬ দফা ও স্বায়ত্তশাসনের দাবি মেনে এদেশে রাজনীতি করতে হবে না। তবে রাজনীতিকে ব্যবসা হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন অনেকেই।

সন্ধ্যায় দেখলাম পুরানা বিশ সেলে নারায়ণগঞ্জের খাজা মহীউদ্দিনকে নিয়ে এসেছে। ওর বিরুদ্ধে অনেকগুলি মামলা দিয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশে ওকে পরীক্ষা দিতে অনুমতি দিয়েছে । ডিভিশন দেয় নাই। ভীষণ মশা, পরশু পরীক্ষা, মশারিও নাই। তাড়াতাড়ি একটা মশারির বন্দোবস্ত করে ওকে পাঠিয়ে দিলাম। আমার কাছাকাছি যখন এসে গেছে একটা কিছু বন্দোবস্ত করা যাবে। বেশি কষ্ট হবে না। খাজা মহীউদ্দিন খুব শক্তিশালী ও সাহসী কর্মী দেখলাম। একটুও ভয় পায় নাই। বুকে বল আছে। যদি দেশের কাজ করে যায় তবে এ ছেলে একদিন নামকরা নেতা হবে, এ সম্বন্ধে কোনো সন্দেহ নাই। ত্যাগ করার মন প্রাণ আছে, আদর্শ যখন ঠিক আছে, বুকে যখন সাহস আছে একদিন তার প্রাপ্য দেশবাসী দেবেই।

২৮ শে জুন ১৯৬৬ঃ

খবরের কাগজ এসেছে। ভাসানী সাহেবের রাজনৈতিক অসুখ ভাল হয়ে গেছে। যখন গুলি চলছিল, আন্দোলন চলছিল, গ্রেপ্তার সমানে সমানে চলেছে তখন দেখলাম শুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। আবার দেখলাম দুই তিন দিন পরে কোথায় যেতে ছিলেন পড়ে যেয়ে পায়ে ব্যথা পেয়েছেন। হঠাৎ অসুস্থ মানুষ আবার বাড়ির বাহির হলেন কি করে? যখন আওয়ামী লীগ ও অন্যান্য কর্মীরা কারাগারে-এক নারায়ণগঞ্জে সাড়ে তিনশত লোকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা ঝুলছে, তখনও কথা বলেন না। আওয়ামী লীগ যখন জুলুম প্রতিরোধ দিবস পালন করল তখন একদল ভাসানী পন্থী প্রগতিবাদী(!) এই আন্দোলনকে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন বলে সরকারের সাথে হাত ও গলা মিলিয়েছে। এখন তিনি হঠাৎ আবার সর্দলীয় যুক্তফ্রন্ট করবার জন্য আহবান জানিয়েছেন এবং নিজে ময়দানে নামবেন।

মওলানা সাহেব পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষতাবে আইযুৰ খানকে সমর্থন করে চলেছেন। মাওলানা সাহেবের সাথে যদি যুক্তফ্রন্ট করতে হয় তবে আইয়ুব সাহেবই বা কি অন্যায় করেছেন? মওলানা সাহেব তো দেশের সমস্যার চিন্তা করেন না। বৈদেশিক নীতি নিয়ে ব্যস্ত। দেশে গণআন্দোলন বা দেশের জনগণের দাবি পূরণ ছাড়া বৈদেশিক নীতিরও কোনো পরিবর্তন হতে পারে। জনগণের সরকার কায়েম হলেই, জনগণ যে বৈদেশিক নীতি অবলম্বন করতে বলবে, নির্বাচিত নেতারা তাহাই করতে বাধ্য। ডিক্টেটর যখন দেশের শাসন ক্ষমতা অধিকার করেছে এবং একটা গোষ্ঠীর স্বার্থেই বৈদেশিক নীতি ও দেশের নীতি পরিচালনা করছে তার কাছ থেকে কি করে এই দাবি আদায় করবেন আমি বুঝতে পারছি না পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ যখন তাদের স্বায়ত্তশাসনের দাবি, খাদ্য, রাজবন্দিদের মুক্তির দাবি নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছে তখন পিছন থেকে ছুরিকাঘাত করে এখন এসেছেন যুক্তফ্রন্ট করতে। আওয়ামী লীগের প্রায় সকল নেতা ও কর্মী কারাগারে বন্দি কেহ কেহ আত্মগোপন করে কাজ করছে, এখন যে কয়েকজন বাইরে আছে তারা কিছুতেই এদের সাথে যোগদান করতে পারে না। আর ছয় দফা দাবি ছেড়ে দিয়ে কোনো নিম্নতম কর্মসূচি মেনে নিতে পারে না। ছয় দফাই নিম্নতম কর্মসূচি। কোনো আপোষ নাই। জনগণ যখন এগিয়ে এসেছে। দাবি আদায় হবেই। আওয়ামী লীগ সংগ্রাম করে যাবে। জনগণকে আর ধোকা দেওয়া চলবে না। অনেক জগাখিচুড়ি পাকানো হয়ে গেছে । আর না। ভাসানী সাহেব এগিয়ে যান আইয়ুব সাহেবের দল নিয়ে। এখন তো তিনি সুখেই আছেন, আর কেন মানুষকে ধোকা দেওয়া? আওয়ামী লীগ বা তার নেতারা যদি ছয় দফা দাবি ত্যাগ করে আপোষ করতে চান তারা ভুল করবেন। কারণ তাহলে জনগণ তাদেরও ত্যাগ করবে।
চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা এম এ আজিজ, জহুর আহমদ চৌধুরী, মানিক বাবু ও আবদুল মান্নানের জন্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন করা হয়েছে। বিচারে কি হয় দেখা যাক।

২রা জুলাই ১৯৬৬ঃ

আজ যারা ৬ দফার দাবি যথা স্বায়ত্তশাসনের দাবিকে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানকে আলাদা করার দাবি বলে উড়াইয়া দিতে চায় বা অত্যাচার করে বন্ধ করতে চায় এই আন্দোলনকে, তারা খুবই ভুল পথে চলছে। ছয় দফা। জনগণের দাবি। পূর্ব পাকিস্তানের বাচা মরার দাবি । এটাকে জোর করে পাবান যাবে না। দেশের অমঙ্গল করা হবে একে চাপা দেবার চেষ্টা করলে । কংগ্রেস যে ভুল করেছিল প্রদেশের স্বায়ত্তশাসনের দাবি ও ফেডারেল না মেনে আমাদের শাসকগাষ্ঠাও সেই ভুল করতে চলেছেন। যখন তুল বুঝবে তথন আর সময় থাকবে না। আমরা পাকিস্তানের আওতায় বিশ্বাস করি, তবে আমাদের নায়া দাবি চাই, অন্যকে দিতে চাই। কলোনি বা বাজার হিসেবে বাস করতে চাই না। নাগরিক হিসেবে সমান অধিকার চাই।

৮ই জুলাই ১৯৬৬ঃ

প্রাত ভ্রমন করছি এমন সময় হাসপাতালের দিকে চেয়ে দেখি শাহবুদ্দিন চৌধুরী সাহেব তাকাইয়া আছেন। আমাকে হাত ইশারা দিয়ে দেরি করতে বলে হঠাৎ চলে গেলেন ভিতরে। তিনটা ছেলেকে কোলে করে কয়েকজন কয়েদি নিয়ে এল বাইরে। দেখলাম একজনের হাত কেটে ফেলেছে একজনের বুকের কাছে গুলি লেগেছিল, আর একজন হাঁটতেই পারে না কোলে করে রেখেছে। বাইরের হাসপাতাল থেকে এদের এনেছে। অত্যাচার করে, মারপিট করে, গুলি করে জখম করেছে এদের জীবন শেষ করে নিয়েছে, তারপর আবার আসামি করে গ্রেপ্তার করে জেলে নিয়ে এসেছে। কি নিষ্ঠুর এই দুনিয়া! এরাই তো আমাদের ভাই, চাচা, প্রতিবেশী। পূর্ব পাকিস্তানের অধিকার আদায় হলে এদের বংশধররা সুযোগ সুবিধা পাৰে। এদেরকে বাদ দিয়ে তো কেউ অধিকার ভোগ করবে না। যারা মৃত্যুবরণ করল আর যারা পঙ্গু হয়ে কারাগারে এসেছে, জীবনভর কষ্ট করবে আমাদের সকলের জন্যই। কেন এই অত্যাচার? কেনই বা এই জুলুম! অত্যাচার কতকাল চলবে!
মনকে শক্ত করতে আমার কিছু সময় লাগলো। ভাবলাম সকল সময় ক্ষমা করা উচিত না, ক্ষমা মহত্বের লক্ষণ, কিন্তু জালেমকে ক্ষমা করা দুর্বলতার লক্ষণ। ইসলামে ঠিক কথাই বলেছে, ক্ষমা করতে পারলে ভাল না করতে পারলে, হাতের পরিবর্তে হাত, চক্ষুর পরিবর্তে চক্ষু নিতে আপত্তি নাই।

আজ আরও একটা ছেলেকে সাতাশ সেল থেকে নিয়ে এসেছে পুরাতন সেলে। ম্যাট্রিক দেবে । নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় বাড়ি। মাথায় আঘাত পেয়েছিল। ধরে নিয়ে ভীষণভাবে মারপিট করেছে। অনেকে জখম নিয়েই কারাগারে এসেছে। খাজা মইনুদ্দিন আমাকে তার পিঠটা দেখালে, এখনও দাগ রয়ে গেছে। তাকে ধরে এনে মেরেছে। শুনলাম ইপিআর-এর লোকগুলি এদের মারধর করে নাই। তারা বেঙ্গল পুলিশকে মিছামিছি গুলি করার জন্য জনসাধারণের সামনেই গালাগালি করেছে। এখনও বহুলোক জেলে আছে। নারায়ণগঞ্জে মামলায় এখনও গ্রেপ্তার চলছে। এদের মধ্যে বেশির ভাগই বাচ্চা ছেলের দল। কি কষ্টেই যে এরা আছে, বলব কি? বলবার ভাষা নেই। একই কাপড় পরে জেলে এসেছে। দিনের পর দিন সেই কাপড় পরেই রয়েছে।

১৮ই জুলাই ১৯৬৬ঃ

পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ প্রায় সকলেই কারাগারে বন্দি অবস্থায় দিন কাটাতে বাধ্য হতেছে। নরসিংদী আওয়ামী লীগের দুইজন ককেও গ্রেপ্তার করে আনা হয়েছে। কাহাকেও আর বাইরে রাখবে না। তবুও দেখে আনন্দই হলো যে, ২৩ তারিখে ওয়ার্কিং কমিটির সভা আহবান করেছে। কাজ করে যেতে হবে। ৬ দফা দাবির সাথে কোনো আপোষ হবে না। আমাদেরও রাজনীতির এই শেষ। কোনো কি আওয়ামী লীগ কর্মীরা চায় না। তারা শুধু চায় জনগণ তাদের অধিকার আদায় করুক।

ন্যাপের সভাপতি নিম্নতম কর্মসূচির ভিত্তিতে সব দলকে এক করতে চান, আজ তাদের সভায় বলেছেন। নিম্নতম কর্মসূচি দিয়ে চুপচাপ তাঁহার নতুন বাড়ি বিন্নাচর গ্রামে যেয়ে বসে থাকলেই দেশ উদ্ধার হয়ে যাবে। সোহরাওয়ার্দী সাহেব যখন আওয়ামী লীগ শুরু করেন সেই সময় হতে এই ভদ্রলোক বহু খেল দেখাইছেন। মিস জিন্নাহর ইলেকশন ও অন্যান আন্দোলনকে তিনি আইয়ুব সরকারকে সমর্থন করার জন্য বানচাল করতে চেষ্টা করছেন পিছন থেকে। তাকে বিশ্বাস করা পূর্ব বাংলার জনগণের আর উচিত হবে না। এখন আর তিনি দেশের কথা ভাবেন না। আন্তর্জাতিক হয়ে গেছেন। মাঝে মাঝে আইযুব-ইয়াহিয়ার কাছে টেলিগ্রাম পাঠান আর কাগজে বিবৃতি দেন। বিরাট নেতা কিনা? আফ্রো-এশীয় ও ল্যাটিন আমেরিকার জনগণের মজলুম জননেতা পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ বাঁচুক আর মরুক তাতে তার কি আসে যায়। আইয়ুব সাহেব আর একটা ডেলিগেশনের নেতা করে পাঠালে খুশি হবেন। বোধহয় সেই চেষ্টায় আছেন।

নুরুল আমীন সাহেব সকল দলকে ডাকবেন একটা যুক্তফ্রন্ট করার জন্য। ৬ দফা মেনে নিলে কারও সাথে মিলতে আওয়ামী লীগের আপত্তি নাই। মানুষকে আমি ধোকা দিতে চাই না। আদর্শে মিল না থাকলে ভবিষ্যতে আবার নিজেদের মধ্যে আত্মকলহ দেখা দিতে বাধ্য। সেদিকটা গভীরভাবে ভাবতে হবে। আইয়ুব সরকারের হাত থেকে জনগণের হাতে ক্ষমতা আনতে হলে আদর্শের সাথে যাদের মিল নাই তাদের সাথে এক হয়ে গোজামিল দিয়ে থাকা সম্ভবপর হতে পারে না। এতে আইয়ুব সাহেবের ক্ষতি কিছু করা গেলেও জনগণের দাবি আদায় হবে না । এত অত্যাচারের মধ্যেও ছয় দফার দাবি এগিয়ে চলেছে। শত অত্যাচার করেও আন্দোলন দমাতে পারে নাই এবং পারবেও না। এখন যারা আবারও যুক্তফ্রন্ট করতে এগিয়ে আসছেন তারা জনগণকে ভাওতা দিতে চান। যারা আন্দোলনের সময় এগিয়ে আসে নাই তাদের সাথে আওয়ামী লীগ এক হয়ে কাজ করতে পারে না। কারণ এতে উপকার থেকে অপকার হবে বেশি। কোনো নিম্নতম কর্মসূচির কথা উঠতেই পারে না । নিম্নতম কর্মসূচি হলো ছয় দফা। শাসনতান্ত্রিক কাঠামো ঠিক না হলে কোনো দাবি আদায় হতে পারে না। পাকিস্তানের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো পূর্বে ঠিক হওয়া দরকার।

১৯ জুলাই ১৯৬৬ঃ

মওলানা ভাসানী সাহেব হঠাৎ সুস্থ হয়ে ঢাকায় এসেছেন এবং সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, ৬ দফা সমর্থন করেন না। তবে স্বায়ত্তশাসন সমর্থন করেন। কারণ, তার পার্টির জন্ম হয় স্বায়ত্তশাসনের দাবির মাধ্যমে। কাগমারি সম্মেলনের কথাও তিনি তুলেছেন। তিনি নাকি দেখে সুখী হয়েছেন যে, একসময়ে যারা স্বায়ত্তশাসনের দাবি করবার জন্য তার বিরোধিতা করেছেন তারাই আজকাল স্বায়ত্তশাসনের দাবি তুলেছে। মওলানা সাহেব বোধহয় ভুলে গিয়াছেন, ভুলবার যদিও কোনো কারণ নাই, সামান্য কিছুদিন হলো ঘটনাটা ঘটেছে। খবরের কাগজগুলি আজও আছে। আওয়ামী লীগ ও ন্যাপের কর্মীরা আজও বেঁচে আছে। তারা জানে, বিরোধ ও গোলমাল হয় বৈদেশিক নীতি নিয়ে। সে গোলমালও মিটমাট হয়ে গিয়েছিল সম্মেলনের পূর্বের রাতে ওয়ার্কিং কমিটির মিটিং-এ। মওলানা সাহেব ৬ দফা সমর্থন না করলেও আন্দোলন চলছে, চলবে এবং আদায়ও হবে। জনগণ ৬-দফাকে মনে প্রাণে গ্রহণ করেছে।

২০শে জুলাই ১৯৬৬ঃ

মোনায়েম খান প্রেসিডেন্ট আইয়ুব ও নবাব কালাবাগ সাহেবকে বলেছেন পূর্ব বাংলার ৬ দফার আন্দোলন শেষ করে দিয়েছেন। আর কিছুদিন থাকলে একদম নস্যাৎ করে দিতে পারবেন। তাই হয়তো কোনো সমঝোতায় আসলেন না সরকার। খুবব ভাল কাজ বোধহয় করলেন । পরিণতি বেশি ভাল হবে বলে মনে হয় না। মানিক মিয়া রাজনীতি করেন না, তবে তার নিজস্ব মতবাদ আছে তাকে দেশরক্ষা আইনে বন্দি করা যে কত বড় অন্যায় ও নীতিবিরুদ্ধ তা কেমন করে ভাষায় প্রকাশ করব । সাংবাদিকরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট বন্ধ করে দিয়েছে। কোনো একটা ভরসা বোধহয় পেয়ে থাকেন। গতকাল থেকে আমার, তাজউদ্দিনের, খন্দকার মোশতাকের ও নুরুল ইসলাম চৌধুরীর রিট আবেদনের শুনানি শুরু হয়েছে। জানি না কি হবে । তবে আমাদের ছাড়বে না সরকার, তা বুঝতে পারি। দেশরক্ষা আইন থেকে মুক্তি পেলে, অন্য কোনো আইনে জেলে বন্দি করতে পারে আটটা মামলা চলছে, আরও কয়েকটা বন্দোবস্ত করে রেখে দিয়েছে। দরকার হলে চালু করে দিবে।

নুরুল আমিন সাহেব ঐক্যবদ্ধ হতে অনুরোধ করেছেন । ঐক্যবদ্ধ হয়ে ঘরে বসে থাকলেই দাবি আদায় হয় না। নূরুল আমীন সাহেব যাদের নিয়ে দল করেছেন তাদের মধ্যে অনেকেই আব্দোলনের ও জেলে যাবার কথা শুনলে প্রথমে ঘরের কোণেই আশ্রর নিয়ে থাকেন। আর পিছন থেকে আন্দোলনকে আঘাত করতে দ্বিধাবোধ করেন না। বেশি গোলমাল দেখলে পাসপোর্ট নিয়ে স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য বিদেশে রওয়ানা হয়ে যান। ৬ দফার দাবিতে যে গণঐক্য দেশে গড়ে উঠেছিল, যার জন্য হাসিমুখে কত লোক জীবন দিল, কত লোক কারাবরণ করছে, তখন এই ঐক্যবদ্ধ করার আগ্রহশীল নেতারা কেহ ঘর থেকে বের হওয়া তো দূরের কথা প্রতিবাদ পর্যন্ত করেন নাই। আজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে এরা সংগ্রাম করবে’! অন্য কেহ বিশ্বাস করলে করতে পারে, কিন্তু আমি করি না। কারণ এদের আমি জানি ও চিনি।

আওয়ামী লীগ সংগ্রামী দল, সংগ্রাম করে যাবে। আদর্শের মিল নাই, সামান্য সুবিধার জন্য আর জনগণকে ধোকা দেওয়া উচিত হবে না। নিম্নতম কর্মসূচিই ছয় দফা। সেই সঙ্গে রাজবন্দিদের মুক্তি, কৃষকদের পচিশ বিঘা পর্যন্ত খাজনা মওকুফ, শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি, গরিব কর্মচারীদের সুবিধা ও খাদ্য সমস্যা সম্বন্ধে কর্মসূচি নেওয়া চলে । তবে ৬ দফা বাদ দিয়া কোনো দলের সাথে আওয়ামী লীগ হাত মেলাতে পারে না। আর করবে না।

২৫শে জুলাই ১৯৬৬ঃ

আওয়ামী লীগ শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালাতে জনগণকে অনুরোধ করেছে-যে পর্যন্ত ৬ দফা দাবি আদায় না হয়। যদিও শান্তিপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করে চলেছে আওয়ামী লীগ, তথাপি সরকার অত্যাচার করে চলেছে। গুলি হলো, গ্যাস মারল, শত শত কর্মীকে জেলে দিল, বিচারের নামে প্রহসন করল, কত লোক গুলি খেয়ে মারা গেছে কে তা বলতে পারে? সরকার নিজেই স্বীকার করেছে ১১ জন মারা গেছে ৭ই জুনের গুলিতে। আমরা পাকিস্তানকে দুই ভাগ করতে চাই বলে যারা চিৎকার করেছে তারাই পাকিস্তানের ক্ষতি করছে। পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়া উচিত। তারা আলাদা হতে চায় না। পাকিস্তান একই থাকবে, যদি স্বায়ত্তশাসনের দাবি মেনে নেওয়া হয়।

আমি জানি আওয়ামী লীগ নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাস করে, তাদের উপর অত্যাচার করা কোন মতেই উচিত হতেছে না। সরকার বলে দিলেই তো পারে, তোমরা রাজনীতি করতে পারবা না। আমরা চিন্তা করে দেখতাম রাজনীতি করব, কি করব না? মার্শাল ল’-এর সময় তো আমরা রাজনীতি করি নাই । চুপচাপ ছিলাম, কারণ রাজনীতি তখন বেআইনী ছিল। আজ দিন যে কিভাবে কেটে গেল আমি জানি না।

১৬ই সেপ্টেম্বর ১৯৬৬ঃ

যদি স্বায়ত্তশাসন ও ৬ দফা আদায় করে নিতে পারি নিব তবে আমরা রাজবন্দিরা তারে খুনী, ডাকাত, একরারীর থেকেও আজকাল খারাপ দেখুন পুরানা ২০ সেলে রণদা সাহেব বার-অ্যাট-ল’, বাবু চিত্ত সুতার ভূতপূর্ব এমপিএ, আবদুল জলিল এডভোকেট, দুইজন ছাত্র-একজন এমএ পরীক্ষা দিবে নুরে আলম সিদ্দিকী, আর একজন বিএ পরীক্ষা দিয়েছে কামরুজ্জামান । আরও আছে শংকর বাবু, পুরানা রাজনৈতিক কর্মী বাড়ি রংপুর, আরও কয়েকজনকে রেখেছেন। তাদের অবস্থা কি? উপর দিয়ে পানি পড়ে। দরজা দিয়ে পানি ঢোকে, একটা করে টিনের পায়খানা। ৭ সেল অনেক ভাল। সেখানে রেখেছেন একরারীদের, আরও অনেক জায়গা ভাল আছে সেখানেও রাখতে পারেন, কিন্তু রাখবেন না। কষ্ট দিতে হবে। আপনারা আমাদের বাধ্য করেছেন মোকাবেলা করে দাবি আদায় করতে।

১৮ই মার্চ, ১৯৬৭ঃ

জেলগেটে আমার দ্বিতীয় মামলার সওয়াল জবাব হবে। ১০ ঘটিকা হতে বসে আছি প্রস্তুত হয়ে। ১২টার সময় আমাকে জেলগেটের কোর্টে নিতে এসেছে। যেয়ে দেখি জহির সাহেব, রব সাহেব, মাহমুদুল্লা সাহেব, আবুল হোসেন, জোহা চৌধুরী প্রমুখ এডভোকেট সাহেব এসে বসে আছেন হাকিমের সামনে। আমার আত্মীয়স্বজন ছাড়াও মোস্তফা আনোয়ার চৌধুরী নিজাম, আলি হোসেন ও কর্মীরাও এসেছে। ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা রেজাও এসেছে। ছাত্রলীগের নির্বাচন নিয়ে খুব গোলমাল। শুধু অনুরোধ করলাম, ‘তোমরা প্রতিষ্ঠানকে রক্ষা করিও। ছাত্রলীগকে ভেঙে ফেলে দিও না। সকলকে আমার সালাম দিও। ঐতিহ্যবাহী এই ছাত্র প্রতিষ্ঠান আমি গড়েছিলাম কয়েকজন নিঃস্বার্থ ছাত্র কর্মী নিয়ে। প্রত্যেকটি আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছে এই প্রতিষ্ঠান। রাষ্ট্রভাষা বাংলার আন্দোলন, রাজবন্দিদের মুক্তি আন্দোলন, ব্যক্তি স্বাধীনতার আন্দোলন, স্বায়ত্তশাসনের আন্দোলন ও ছাত্রদের দাবি দাওয়া নিয়ে আন্দোলন করে বহু জেল-জুলুম সহ্য করেছে এই কর্মীরা। পূর্ব বাংলার ছয় দফার আন্দোলন ও আওয়ামী লীগের পুরাভাগে থেকে আন্দোলন চালিয়েছে ছাত্রলীগ । এই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গোলমাল হলে আমার বুকে খুব আঘাত লাগে। তাই রেজাকে বললাম, প্রতিষ্ঠান রক্ষা করিও।

২৩ শে মার্চ ১৯৬৭ঃ

লাহোর প্রস্তাব অনুযায়ী শাসনতন্ত্র তৈয়ার না করার জন্য দুই পাকিস্তানে আজও ভুল বুঝাবুঝি চলছে, বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানকে একটি কলোনিতে পরিণত করা হয়েছে। আমি যে ৬ দফা প্রস্তাব করেছি, ১৩ই জানুয়ারি ১৯৬৬ সালে লাহোর প্রস্তাব ভিত্তি করে, সে প্রস্তাব করার জন্য আমি ও আমার সহকর্মীর কারাগারে বন্দি। ইত্তেফাক কাগজ ও প্রেস বাজেয়াপ্ত এবং মালিক ও সম্পাদক মানিক ভাই কারাগারে বন্দি। এই দাবির জন্যই ৭ই জুন ৭ শত লোক গ্রেপ্তার হয় এবং ১১ জন জীবন দেয় পুলিশের গুলিতে। আমি দিব্যচোখে দেখতে পারছি দাবি আদায় হবে, তবে কিছু ত্যাগের প্রয়োজন হবে। আজকাল আবার রাজনীতিবিদরা বলে থাকেন লাহোর প্রস্তাবের দাম নাই পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন দিলে পাকিস্তান দুর্বল হবে। এর অর্থ পূর্ব পাকিস্তানের ছয় কোটি লোককে বাজার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না, যদি স্বায়ত্তশাসন দেওয়া হয় । চিরদিন কাহাকেও শাসন করা যায় না, যতই দিন যাবে তিক্ততা আরও বাড়বে এবং তিক্ততার ভিতর দিয়ে দাবি আদায় হলে পরিণতি ভয়াবহ হবার সম্ভাবনা আছে।

৮ই এপ্রিল–১০ই এপ্রিল ১৯৬৭ঃ

আজ ৮ই এপ্রিল জেল গেটে ১৯৬৫ সালের ২০শে মার্চ তারিখে পল্টন ময়দানের সভায় যে বক্তিতা করেছিলাম সেই বক্তৃতার মামলার সাওয়াল জবাব শেষ হয়। জনাব আবদুস সালাম খান সাহেব ও জিয়াউদ্দিন সাহেব আমার পক্ষে সওয়াল জবাব করেন। সরকারি উকিল জনাব মেজবাহউদ্দিন সরকারের পক্ষে করেন । প্রায় চার ঘণ্টা চলে। ৬ দফা দাবি কেন সরকারের মেনে নেওয়া উচিত তার উপরই বক্তৃতা করেছিলাম। পূর্ব পাকিস্তানকে স্বায়ত্তশাসন দেওয়া দরকার। দেশ রক্ষা শক্তিশালী করা প্রয়োজন। গত পাক-ভারত যুদ্ধের সময় পূর্ব বাংলার সাথে পশ্চিম পাকিস্তানের বিশেষ করে কেন্দ্রীয় সরকারের কোনো যোগাযোগ ছিল না। অর্থনৈতিক বৈষম্য দূর করতে হবে। আরও অনেক কিছু আমি নাকি হিংসা, দ্বেষ ও ঘৃণা পয়দা করতে চেয়েছি পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। আমার বুকে ব্যথা, কিন্তু তা বলতে পারব না। আমার পকেট মেরে আর একজন টাকা নিয়ে যাবে, তা বলা যাবে না। আমার সম্পদ ছলে বলে কৌশলে নিয়ে যাবে বাধা দেওয়া তো দুরের কথা-বলা যাবে না। পশ্চিম পাকিস্তানে তিনটা রাজধানী করা হয়েছে যেমন করাচী, পিন্ডি এখন ইসলামাবাদ। কিন্তু পূর্ব পাকিস্তানের বন্যা বন্ধ করার টাকা চাওয়া যাবে না।

দেশরক্ষা আইনে বিচার হয়েছে এই একই ধরনের বক্তৃতার জন্য ডজন খানেক মামলা দায়ের করা হতেছে। মামলার কিছুই নাই, আমাকে জেল দিতে পারে না। যদি নিচের দিকে জেল দিতে বাধ্য হয় তবে জজকোর্ট ও হাইকোর্টে টিকে না। পাৰনায় জনসাধারণ ও আওয়ামী লীগ কর্মীদের উপর চরম অত্যাচার চলছে। আওয়ামী লীগের সকল নেতা ও কর্মীদের গ্রেপ্তার করে ফেলেছে। জামিন দেওয়া হয় নাই। সালাম সাহের নিজে গিয়েছিলেন জামিন নিতে। তাকে দেখা করতে দেয় নাই বন্দিদের সাথে।

২২ এপ্রিল ১৯৬৭ঃ

আজ ২২ তারিখ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ নবাবজাদা নসরুল্লাহ খা, মালিক গোলাম জিলানী, গোলাম মোহাম্মদ খান লুন্দখোর, মালিক সরফরাজ ও জনাব আকতার আহম্মদ খান পশ্চিম পাকিস্তান থেকে এবং আবদুস সালাম খান, জহিরুদ্দিন, মশিয়ুর রহমান, নজরুল ইসলাম, এম এ আজিজ, আবুল হোসেন এবং আরো অনেকে জেল গেটে কোটে আমার সাথে দেখা করতে আসে। যশোর থেকে আব্দুর রশিদ, খুলনা থেকে আবদুল মোমেন এসেছিল । অনেক আলাপ হলো। যুক্তফ্রন্ট করা যায় কিনা? নিম্নতম কর্মসূচির ভিত্তিতে যুক্তফ্রন্ট করার আপত্তি অনেকেরই নাই তবে ৬ দফা দাবি ছাড়তে কেহই রাজি নয়। এটা আওয়ামী লীগের কর্মসূচি হলেও জনগণ সমর্থন দিয়েছে, প্রাণ দিয়েছে, জেল খাটছে। এই দাবি পূরণ না হলে পূর্ব বাংলার জনগণের বাঁচবার কোনো পথ নাই । আমি আমার মতামত দেই নাই কারণ ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যরা নিজেরাই আলোচনা করে তাদের পথ ঠিক করুক। আমি আমার মত চাপিয়ে দিতে যাবে কেন? আমি বন্দি। বাইরের অবস্থা তারাই ভাল জানে। তবে ৬ দফা দাবি দরকার হলে একলাই করে যাবো।

২৩ এপ্রিল- ২৭ এপ্রিল ১৯৬৭ঃ

পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ প্রস্তাব দিয়েছে আমার মত নিয়ে কাজে অগ্রসর হতে। কোর্টে জহির সাহেব আমার কাছে মত জিজ্ঞাসা করেছেন আর বলেছেন অনেকদূর অগ্রসর হয়ে গেছে-পিছান কষ্টকর। আমি আমেনা, আজিজ, মোস্তফা ও জহির সাহেবকে বলে দিয়েছি ঐক্যে আমার আপত্তি নাই তবে সকল বিরোধী দলকে নিতে হবে, ন্যাপ কে বাদ দেওয়া চলবে না; দ্বিতীয়ত পার্টির কাজ বন্ধ হবে না-৬ দফা আন্দোলন চালিয়ে যাবে পার্টি। আমি ও আমার সহকর্মী যারা জেলে আছে বিশেষ করে খন্দকার মোশতাক, তাজউদ্দীন ও আমাকে কোনো সর্বদলীয় কমিটিতে রাখবা না। আমরা ৬ দফা দাবির জন্য জেলে এসেছি। অনেক লোক গুলি খেয়ে মারা গেছে, অনেক কর্মী জেল খাটছে তাদের ত্যাগের দাম আমাকে দিতেই হবে। তাদের রক্তের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা আমি করতে পারব না। তবে ঐক্য হউক, এই সমস্ত নেতারা করে দেখি? এরা ত্যাগ করতে প্রস্তুত আছে কিনা আমি জানি না। তবে আমার সন্দেহ আছে! আমি তোমাদের বাধা দিতে চাই না, তবে উপরে উল্লেখিত দাবি না মানলে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ যোগদান করবে না। যদি করে তাতে আমি আর কি করতে পারি। আমিতো জেলেই আছি

২৭ তারিখে আমার একটা মামলার রায়, ১৯৬৬ সালের ২০শে মার্চ ক ময়দানে আওয়ামী লীগ কর্তৃক আয়োজিত সভায় বক্তৃতা দানের অভিযোগে। জনাব আফসার উদ্দিন প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট জেলগেটের অভ্যন্তরে কোর্ট করে আমার বিচার করেন এবং আমাকে পাকিস্তান দেশরক্ষা আইনের ৪২ ধারা বলে ১৫ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

এই দণ্ড দেওয়ার পরেই জহিরের সাথে আমার আলাপ হয়। আমি তাকে বললাম আমাকে জেল দিয়েছে আমি বিনা বিচারে বন্দি আছি। কতকাল থাকতে হয় জানি না, আমার পক্ষে পূর্ব বাংলার মানুষের সাথে বেঈমানী করা সম্ভব নয় । যাহা ভাল বোঝ কর। আমি জানি ৬ দফা দাবি পূরণ হওয়া ছাড়া এদের বাঁচানোর উপায় নাই। আজ আমি এক বৎসর দেশরক্ষা আইনে বিনা বিচারে জেলে আছি। আমার সহকর্মীরাও আছে । আমি দেখলাম আমার অবর্তমানে দুই গ্রুপ সৃষ্টি হয়েছে । একদল ৬ দফা ছাড়া আপোষ করবে না আর একদল নিম্নতম কর্মসূচিতেই রাজি।

৩রা মে- ২৩শে মে ১৯৬৭ঃ

হাইকোর্ট থেকে একটা হুকুম পেয়েছি যে বক্তৃতার মামলায় জনাব মালেক- প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট, আমাকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে সরকার হাইকোর্টে আপীল করেছেন। আগামী ২৯ তারিখে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে তার শুনানি হবে বলে নোটিশ পেয়েছি । কাগজটা পাঠাইয়া দিয়েছি রেণু’র কাছে এডভোকেটদের সাথে পরামর্শ করে যে কোনো একজন ভাল এডভোকেট দিয়ে মামলা পরিচালনা করতে। এতগুলি বক্তৃতার মামলা দিয়েছে। দুইটায় সাজা হয়েছে, একটায় খালাস পেয়েছি, তার বিরুদ্ধেও আপীল করতে সরকারের কত উৎসাহ। যদিও এডভোকেট সাহেব টাকা নেয় না, তথাপি নকল ও অন্যান্য খরচ বাবদ অনেক টাকা ব্যয় হয়। জেলে আছি উপার্জন নাই । ছেলেমেয়েদের খুবই অসুবিধা হবে। লড়তে হবে, উপায় কি? রাজনৈতিক কারণে মানুষ মানুষকে অত্যাচার করে তবে তার একটা সীমা আছে ও লজ্জা আছে । নিশ্চয়ই জনগণ বুঝতে পারে যে একটা লোককে ধ্বংস করার জন্য সরকার উঠে পড়ে লেগেছে। সরকার নিশ্চয়ই জানে ‘যার কিছুই নাই তার আবার কিছু নষ্ট হবার ভয় কি?’ একটা ‘দোয বোধ হয় আমার আছে সেটা হলো জনগণ আমাকে ভালবাসে এবং যে ৬ দফা দাবি করেছি তাহা সমর্থন করে, তাই বোধ হয় এই অত্যাচার। দুনিয়ার ইতিহাসে দেখা গেছে যে কোনো ব্যক্তি জনগণের জন্য এবং তাদের অধিকার আদায়ের জন্য কোনো প্রোগ্রাম দিয়েছে, যাহা ন্যায্য দাবি বলে জনগণ মেনে নিয়েছে । অত্যাচার করে তাহা দমানো যায় না। যদি সেই ব্যক্তিকে হত্যাও করা যায় কিন্তু দাবি মরে না এবং সে দাবি আদায়ও হয়। যারা ইতিহাসের ছাত্র বা রাজনীতিবিদ, তারা ভাল করে জানেন । জেলের ভিতর আমি মরে যেতে পারি তবে এ বিশ্বাস নিয়ে মরব। জনগণ তাদের ন্যায্য অধিকার একদিন আদায় করবে।

শুনলাম বাইরে খুব গোলমাল আওয়ামী লীগের মধ্যে । একদল পিডিএমএ যোগদান করার পক্ষে, আর একদল ছয় দফা ছাড়া কোনো আপোষ করতে রাজি নয়। ১৯ তারিখে ওয়ার্কিং কমিটির বর্ধিত সভা । জেলা ও মহকুমার সম্পাদকদেরও ডাকা হয়েছে । সভা আমার বাড়িতেই করতে হবে বলে একটিং সভাপতি ও এক্টিং সম্পাদক রেনুকে অনুরোধ করেছে। আমি বলেছি সকলে যদি রাজি হয় তাহা হইলে করিও । আমার আপত্তি নাই।

আপোষ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই। জেলের ভিতর যারা আছে তাদের মধ্যেই মতবিরোধ আছে । তাজউদ্দীন, মোমিন সাহেব, ওবায়দুল, শাহ মোয়াজ্জেম ও মণি কিছুতেই ৬ দফা ছাড়া পিডিএমএ যোগদান করতে রাজি নয়। খোন্দকার মোশতাক যাতে দলের মধ্যে ভাঙন না হয় তার জন্যই ব্যস্ত। যদিও আমার কাছে মিজানুর রহমান এ কথা ও কথা বলে, তবে সে পিডিএমএর পক্ষপাতী। রফিকুল ইসলাম আমার কাছে এক কথা বলে আর বাইরে অন্য খবর পাঠায়। জালাল ও সিরাজের মতামত জানি না, কারন কমিলায় আছে । তাজউদ্দীন ময়মনসিংহ থেকে আমাকে খবর দিয়েছে নারায়ণগঞ্জের মহীউদ্দিনের মতামত আমি জানি না। তবে ছাত্রনেতা নুরে আলম, নূরুল ইসলাম–আওয়ামী লীগ কর্মী, সুলতান ঢাকা সিটি কর্মী, শ্রমিত নেতা মান্নান ও রুহুল আমিনও আমাকে খবর দিয়েছে ৬ দফা ছাড়া আপোষ হতে পারে না। কিছু কিছু নেতা পিডিএম এর পক্ষে, কর্মীরা কেউই রাজি না মানিক ভাই ও পিডিএম এর পক্ষে। ৮ দফা পিডিএম দিয়েছে। আমাদের দলের চার নেতা জহির, রশিদ, মুজিবুর রহমান ও নুরুল ইসলাম সাহেব তো বিবৃতিই দিয়েছে আট দফা আওয়ামী লীগের মানস পুত্র বলে। তাদের বিবৃতিতে মনে হয় ৮ দফা দাবি ৬ দফা দাবির চেয়েও ভাল। আমি এটা স্বীকার করতে পারি নাই—তাই আমার মতামত পূর্বেই দিয়ে দিয়েছি। আকাশ-পাতাল ব্যবধান রয়েছে এর মধ্যে । পূর্ব বাংলার লােকেদের ধােকা দিতে চেষ্টা করছে পশ্চিম পাকিস্তানের নেতারা, বিশেষ করে মওলানা মওদুদী ও চৌধুরী মহম্মদ আলী। ৮ দফা পূর্ব বাংলাকে ৬ দফা দাবি থেকে মোড় ঘুরাইবার একটা ধোঁকা ছাড়া কিছুই না । ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন আমিও চাই, তবে এই সকল বড় বড় নেতারা আন্দোলন করার ধার দিয়েও যাবে না আমার জানা আছে। মওলানা মওদুদী আমাকে বিচ্ছিন্নতাবাদী বলে আক্রমণও করেছে। ১৮ তারিখে জহির সাহেব, সৈয়দ নজরুল সাহেব, মশিয়ুর রহমান ও আবুল হোসেন আমার সাথে দেখা করতে আসেন। অনেক আলাপ করার পরে আমি বলে দিয়েছি পিডিএম এ যোগদান করতে পারেন না এবং যারা দস্তখত করেছে সেটা অনুমোদনও করতে পারে না ওয়ার্কিং কমিটি। কারণ কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে ৬ দফা ছাড়া কোনো আপোষ হবে না। জন্য কোনো সিদ্ধান্ত নিতে হলে কাউন্সিল ডেকে সিদ্ধান্ত করাইয়া নিবেন। আমার ব্যক্তিগত মত ৬ দফার জন্য জেলে এসেছি বের হয়ে ৬ দফার আন্দোলনই করব। যারা রক্ত দিয়েছে পূর্ব পাকিস্তানের মুক্তিসনদ ৬ দফার জন্য, যারা জেল খেটেছে ও খাটছে তাদের রক্তের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে আমি পারব না। পরে জানাইয়া দেই। এও বলেছি এমনভাবে প্রস্তাব করবেন যাতে যারা দস্তখত করেছে তারা যেন সসম্মানে ফিরে আসতে পারে। তবে যদি পিডিএম কোন আন্দোলন করে তাদের সাথে সহযোগিতা করতে রাজি আছি-সহযোগিতা চাইলে, এইভাবে প্রস্তাব করবেন। প্রস্তাব সেইভাবেই করা। হয়েছে।

ওয়ার্কিং কমিটির সভা শেষ করেই জনাব জহিরুদ্দিন, মশিয়ুর রহমান, মুজিবর রহমান (রাজশাহী), আব্দুর রশিদ ও নুরুল ইসলাম চৌধুরী পিডিএফ এ যোগদান করার জন্য লাহোর রওয়ানা হয়ে গিয়েছে। তারা সভায় যােগদান করেছে। বুঝতে আর বাকি রইল না এরা পিডিএম করতেই চায় ৬ দফার আর প্রয়োজন নেই তাদের কাছে।

২৭মে-২৮মে ১৯৬৭ঃ

জহিরুদ্দিনের ইচ্ছা আর সালাম সাহেব চান পূর্ব-পাক আওয়ামী লীগ পিডিএম-এ যোগদান করুক। যেভাবে পিডিএম প্রস্তাব গ্রহণ করেছে তাতে আছে ৮ দফার বিপরীত কোনো দাবি করা যাবে না। অর্থ হলো, ৬ দফা দাবি ছেড়ে দিতে হবে। আমি পরিষ্কার আমার ব্যক্তিগত মতামত দিয়ে দিতে বাধ্য হলাম । ৬ দফা ছাড়তে পারব না । যেদিন বের হব ৬ দফারই আন্দোলন করব। পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ পিডিএফ কমিটিতে যোগদান করতে পারবে না । কাউন্সিল সভা হউক দেখা যাবে । যদি পার্টি যেতে চায় আমার আপত্তি কি? কতদিন থাকব ঠিক তো নাই । এটা আমার কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে ৬ দফা আন্দোলনকে বানচাল করার ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুই না। পশ্চিমা নেতৃবৃন্দ, শোষক ও শাসকগোষ্ঠী এই ষড়যন্ত্র করছে। আমাদের নেতারা বুঝেও বুঝতে চায় না। আমেনাকে বললাম, “৭ই জুন শান্তিপূর্ণভাবে পালন করিও। হরতাল করার দরকার নাই। সভা শোভাযাত্রা পথসভা করবা।”

২৮ তারিখের কাগজে দেখলাম ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, জয়দেবপুর ও ফতুল্লা থানা এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে, যাতে ৭ই জুন ৬ দফা দাবি দিবস’ পালন করতে না পারে। বুঝতে আর কষ্ট হলো না।

সংবাদ ও ইত্তেফাক বন্ধ করার ব্যাপার নিয়ে আন্দোলন শুরু হয়েছে, আমাকে দমাতে হবে। এটাই হলো সরকারের উদ্দেশ্য।

১৭ জানুয়ারি ১৯৬৮ 

রাত ১২ টার দিকে আমাকে জেলার সাহেব ঘুম থেকে ডেকে তুললো। বললো, আপনার মুক্তির আদেশ দিয়েছে সরকার, এখনই আপনাকে মুক্ত করে দিতে হবে। আমি তাকে প্রশ্ন করলাম, আমার যে অনেকগুলি মামলা রয়েছে যার জামানত নেওয়া হয় নাই। চট্টগ্রাম থেকে কাস্টডি ওয়ারেন্ট রয়েছে, আর যশোর, সিলেট ময়মনসিংহ, নোয়াখালী, পাবনা থেকে প্রােডাকশন ওয়ারেন্ট রয়েছে। ছাড়বেন কি করে? এটাতো বেআইনি হবে। তিনি বললেন, সরকারের হুকুমে এগুলি থাকলেও ছাড়তে পারি। আমি তাকে হুকুমনামা দেখাতে বললাম। তিনি জেল গেটে ফিরে গেলেন হুকুমনামা আনতে। আমি মোমিন সাহেবকে বললাম, মনে হয় কিছু একটা ষড়যন্ত্র আছে এর মধ্যে। হতে পারে এরা আমাকে এ জেল থেকে অন্য জেলে পাঠাবে | কিছু একটাও হতে পারে, কিছুদিন থেকে আমার কানে আসছিলোল আমাকে ষড়যন্ত্র’ মামলায় জড়াইবার জন্য কোনো কোনো মহল থেকে চেষ্টা করা হতেছিল। ডিসেম্বর মাস থেকে অনেক সামরিক, সিএসপি ও সাধারণ নাগরিক গ্রেপ্তার হয়েছে দেশরক্ষা আইনেরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা উপলক্ষ্যে, সত্য মিথ্যা খোদাই জানে।

দেশরক্ষা আইনে জেলে রেখেছে, ১১টা মামলা দায়ের করেছে। আমার বিরুদ্ধে। কয়েকটাতে জেলও হয়েছে, এরপরও এদের ঝাল পড়ল না, ৬ দফার ঝাল এতো বেশি জানতাম না। ডেপুটি জেলার হুকুমনামা নিয়ে এলেন, আমাকে দেখালেন। আমি পড়ে দেখলাম, দেশরক্ষা আইন থেকে আমাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

বিছানা কাপড়গুলি বেঁধে দিল কয়েদিরা। আমি দেখলাম, ডিপুটি জেলার ও সিপাহি জমাদার, যারা আমাকে ও মালপত্র নিতে এসেছে তাদের মুখ খুব ভার। কারো মুখে হাসি নাই। আমার বুঝতে আর বাকি রইল না যে, অন্য কোনো বিপদে আমাকে ফেলছে সেটা আর কিছু না, যড়যন্ত্র মামলা।

জেলগেটে এসেই দেখি এলাহি কান্ড। সামরিক বাহিনীর লোকজন যথারীতি সামরিক পোশাকে সজ্জিত হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আমাকে ‘অভ্যর্থনা করা জন্য। আমি ডিপুটি জেলার সাহেবের রুমে এসে বসতেই একজন সামরিক বাহিনীর বড় কর্মকর্তা আমার কাছে এসে বললেন, “শেখ সাহেব আপনাও গ্রেপ্তার করা হলো”। আমি তাকে বললাম, নিশ্চয় আপনার কাছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা আছে। আমাকে দেখালে বাধিত হব । তিনি একজন সাদা পোশাক পরিহিত কর্মচারীকে বললেন পড়ে শোনাতে। তিনি পড়লেন ‘আর্মি, নেভি ও এয়ারফোর্স আইন অনুযায়ী গ্রেপ্তার করা হলো।’ আমি বললাম ঠিক আছে চলুন কোথায় যেতে হবে।

জেলের লোহার দরজা খুলে দেওয়া হলো। সামনেই একটি গাড়ি দাঁড়াইয়া আছে । চারদিকে সামরিক বাহিনীর জওয়ানরা পাহারায় রত আছেন। একজন মেজর সাহেব আমাকে গাড়িতে উঠতে বললেন। আমি গাড়ির ভিতরে বসলাম । দুই পার্শ্বে দু’জন সশস্ত্র পাহারাদার, সামনের সিটে ড্রাইভার মেজর সাহেব। গাড়ি নাজিমুদ্দীন রোড হয়ে রমনার দিকে চলল। আমি পাইপ ধরাইয়া রাত্রের স্নিগ্ধ হাওয়া উপভোগ করতে লাগলাম, যদিও শীতের রাত। ভাবলাম কোথায় আমার নূতন আস্তানা হবে! কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে! কিছুই তো জানি না। গাড়ি চলে কুর্মিটোলার দিকে।

বহুকাল পরে ঢাকা শহর দেখছি, ভালই লাগছে । মনে মনে শেরে বাংলা ফজলুল হক, জননেতা সোহরাওয়ার্দী ও খাজা নাজিমুদ্দিনের কবর কে সালাম করলাম । চিরনিদ্রায় শুয়ে আছ, একবারও কি মনে পড়ে না এই হতভাগা দেশবাসীর কথা! শাহবাগ হোটেল পার হয়ে, এয়ারপোর্টের দিকে চলেছে।

এয়ারপোর্ট ত্যাগ করে যখন ক্যান্টনমেন্ট ঢুকলাম তখন আর বুঝতে বাকি রইল না। মনে মনে বাংলার মাটিকে সালাম দিয়ে বললাম, “তোমাকে আমি ভালবাসি, মৃত্যুর পরে তোমার মাটিতে যেন আমার একটু স্থান হয়, মা।”

এর মধ্যেই এসে পৌছলাম একটা ঘরের সামনে । এখানেও সামরিক বাহিনী পাহারা দিচ্ছে । দরজা খুলে দিল । আমি নেমে পড়লে আমাকে সাথে করে একটা কামরায় নিয়ে গেল। সেখানে তিনজন সাদা পোশাক পরিহিত কর্মচারী দাঁড়াইয়া আছে। আমার কেহ কোনো আলাপ করলেন না, আমিও চুপ করে দাঁড়াইয়া রইলাম। কয়েক মিনিট পরে বললাম, শরীর ভাল না, কোথাও বসতে অনুমতি দিন। আমাকে পাশের আর একটা কামরায় নিয়ে বসতে দেওয়া হলো । কয়েক মিনিট পরে এক ভদ্রলোক এলেন এবং আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন যড়যন্ত্র ব্যাপার সম্বন্ধে । বললাম, কিছুই জানি এর মধ্যে এক ভদ্রলোক বলিষ্ঠ গঠন, সুন্দর চেহারা, আমার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে শুরু করলেন। তিনি একজন ডাক্তার। আমার হার্ট পেট রক্তচাপ পরীক্ষা করলেন । কিছুই না বলে চলে গেলেন পাশের কামরায়। কয়েক মিনিট পরে আর একজন কর্মচারী এসে বললেন, চলুন । একটা জীপ গাড়িতে। করে আমাকে অন্য এক জায়গায় নিয়ে যাওয়া হলো। এক কামরা বিশিষ্ট। একটা দালান । সাথে গোসলখানা, ড্রেসিং রুম, স্টোর রুম আছে । দু’খানা খাট পাশাপাশি । একটা খাটে একটা বিছানা আছে । আর একটা খাট খালি। পড়ে আছে। আমাকে বলা হলো আপনার মালপত্র এসে গেছে দেখে নেন । বিছানা খুলে বিছানা করে নিলাম। একজন কর্মচারী-যার নাম লেফটেন্যান্ট জাফর ইকবাল সাহেব, তিনি আমার পাশের খাটেই ঘুমাবেন সামরিক পোশাক পরে—সাথে রিভলবার আছে। লেফটেন্যান্ট সাহেব একাকী প্যাসেন্স খেলতে লাগলেন । আমি বিছানায় বসে পাইপ টানতে লাগলাম, কোনো কথা নাই । কুর্মিটোলার কোন জায়গায় আমি আছি নিজেই জানি না ।

আমাকে সন্ধ্যার পরে আলো বন্ধ করে মেস এরিয়ার বাইরে একটা রাস্তায় বেড়াতে নিয়ে যাওয়া হতো। একজন অফিসার আমার সাথে সাথে হাঁটতো আর দুজন মিলিটারী রাস্তার দুইদিকে পাহারা দিত। কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারে না। রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হতে। কয়েকদিন বেড়াবার পরে আমার একটু সন্দেহ হলো । মেস এরিয়ার মধ্যে এত জায়গা থাকতে আমাকে বাইরে বেড়াতে নেওয়া হচ্ছে কেন? দু’ একজনের ভাবসাবও ভাল মনে হচ্ছিল না। একটা খবরও আমি পেলাম । কেহ কেহ ষড়যন্ত্র করছে আমাকে হত্যা করতে। আমাকে পিছন থেকে গুলি করে মেরে ফেলা হবে। তারপর বলা হবে পালাতে চেষ্টা করেছিলাম, তাই পাহারাদার গুলি করতে বাধ্য হয়েছে। যেখানে আমাকে বেড়াতে নিয়ে যাওয়া হতো জায়গাটা মেসের বাইরে। কাউকে দেখাতে পারবে যে আমি ভেগে বাইরে চলে গিয়াছিলাম তাই গুলি করা হয়েছে। আমি যে ষড়যন্ত্রটা বুঝতে পেরেছি এটা কাহাকেও বুঝতে না দিয়ে বললাম, এরিয়ার বাইরে বেড়াতে যাবো না, ভিতরে বেড়াবো। ষড়যন্ত্রকারীরা বুঝতে পারল যে আমি বুঝতে পেরেছি। আমি অফিসারদের সামনেই বেড়াতাম । আর একটা খবরও পেয়েছিলাম পরে। প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান নাকি বলে দিয়েছেন, আমার উপর যেন কোন শারিরিক অত্যাচার না হয়। আমিও কথায় কথায় কর্মচারীদের জানাইয়া দিয়েছিলাম, আমার গায়ে যদি হাত দেওয়া হয় তবে আমি আত্মহত্যা করব। জানি ইহা একটি মহাপাপ। কিন্তু উপায় কি? মানসিক অত্যাচার যাহা করেছে তাহার চেয়ে গুলি করে মেরে ফেলা অনেক ভাল।

সূত্রঃ কারাগারের রোজনামচা- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

add

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর
add